রায়গঞ্জঃ ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের শতবর্ষ পালনে নজির রেখে রায়গঞ্জের উকিলপাড়ার বারোয়ারীতলা যুবক সংঘের নবীন ও প্রবীন সদস্যেরা একটি রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেছিলেন। এই মুহুর্তে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল একদম রক্তশুন্য আবস্থায় রয়েছে। এই রক্তদানের ফলে অভাব কিছুটা হলেও কমবে বলে মনে করা হচ্ছে।

রক্তদান শিবিরের আগে উকিলপাড়ায় শনিবার ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের পতাকা উত্তোলন করে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। বারোয়ারীতলা যুবক সংঘের ক্লাব প্রাঙ্গণ জন্মশতবর্ষ পালনের লাল হলুদ বেলুন ও ইস্টবেঙ্গলের প্রতীকসহ ছোট ছোট পতাকায় সেজে উঠেছিল। রক্তদান শিবিরে লকডাউন ও করোনা পরিস্থিতির সমস্ত নিয়মাবলি পালন করা হয়েছে। মোট ৪৫ জন রক্তদাতা এদিন রক্তদান করেছেন।

এলাকার বাসিন্দা তথা শিশু চিকিৎসক নীলাঞ্জন মুখার্জি উপস্থিত ছিলেন। ক্লাব সদস্য রাহুল বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে রায়গঞ্জ ব্লাড ব্যাংকে রক্তসংকট দেখা দিয়েছে।

এই সময়ে সাধারণ মানুষের পাশে থাকার জন্য ও ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের একশো বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে আমরা ক্লাবের পক্ষ থেকে সমস্ত সুরক্ষাবিধি মেনে রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেছি। রক্তদান শিবিরে রায়গঞ্জের সবশ্রেনীর মানুষ অংশ নিয়েছিলেন।’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.