কলকাতা: মিনি ডার্বি হেরে বৃহস্পতিবার লিগের দৌড় থেকে কার্যত ছিটকে গিয়েছে মোহনবাগান। রেনবো এফসি’র বিরুদ্ধে পদস্খলন মানে লিগ কার্যত হাতের বাইরে চলে যেত চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ইস্টবেঙ্গলেরও। কিন্তু শুক্রবার রেনবো এফসি’কে একমাত্র গোলে হারিয়ে কলকাতা লিগ জয়ের দৌড়ে প্রবলভাবে টিকে রইল লাল-হলুদ। ম্যাচের ৩৬ মিনিটে স্পটকিক থেকে ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড এসপাদা মার্টিন।

গত ম্যাচে ভবানীপুরের সঙ্গে ড্র করে লিগ জয়ের পথে হোঁচট খেয়েছিল ইস্টবেঙ্গল। নামমাত্র গোলে হলেও ব্যারাকপুরের রেনবো এফসি’কে হারিয়ে লিগ জয়ের দৌড়ে ফের দারুণভাবে ফিরে এল তারা। ৯ ম্যাচে ১৭ পয়েন্ট নিয়ে মহামেডান স্পোর্টিংকে টপকে দ্বিতীয়স্থানে উঠে এল লাল-হলুদ।

ম্যাচ জিতলেও এদিন আহামরি ফুটবল উপহার দিতে ব্যর্থ আলেজান্দ্রোর ছেলেরা। তবে কাদা মাঠে এর চেয়ে কতটা ভালো ফুটবল দেওয়া সম্ভব ফুটবলারদের, তা নিয়েও থাকছে প্রশ্নচিহ্ন। কিন্তু টেলিভিশনের পর্দায় মহামেডানের বিরুদ্ধে মোহনবাগানের হারে চোখ রেখে শুক্রবারের ম্যাচে বাড়তি সতর্ক হয়ে মাঠে নামেন লাল-হলুদের স্প্যানিশ কোচ। খেলার অযোগ্য মাঠেও প্রথমার্ধ জুড়ে একাধিক সুযোগ তৈরি হল ইস্টবেঙ্গলের। যা ঠিকঠাক কাজে লাগালে প্রথমার্ধেই তিন-চার গোলে এগিয়ে যেতে পারত লাল-হলুদ। আপফ্রন্টে এদিন রোনাল্ডো অলিভিয়েরা ও এসপাদা মার্টিনে ভরসা রেখেছিলেন আলেজান্দ্রো।

সুযোগ নষ্টের প্রদর্শনীর মধ্যেই ৩৬ মিনিটে ফাঁকায় বল পেয়ে গোলমুখে অগ্রসর হন রোনাল্ডো। তবে গোলমুখে আগুয়ান গোয়ানিজ স্ট্রাইকারকে অবৈধ উপায়ে বাধা দেন বিপক্ষের এক ডিফেন্ডার। পেনাল্টির নির্দেশ দিতে কোনও ভুল করেননি রেফারি। ৩৬ মিনিটে স্পটকিক থেকে নিশানায় অব্যর্থ থাকেন মার্টিন। ইস্টবেঙ্গল জার্সি গায়ে পঞ্চম ম্যাচে এসে অবশেষে গোলের দেখা পেলেন তিনি। বেশ কিছু ক্ষেত্রে ভালো সেভ করলেন রেনবো গোলরক্ষক অঙ্কুর।

দ্বিতীয়ার্ধে গোল বাড়িয়ে নেওয়ার আশায় কোলাডো, ব্রেন্ডন ও লালরিনডিকাকে মাঠে নামিয়ে দেন আলেজান্দ্রো। তবে সুযোগ পেলেও ইনিসিওরেন্স গোল তুলে নিতে ব্যর্থ হন কোলাডো। উলটোদিকে ৭১ মিনিটে রেনবো স্ট্রাইকার ফেলিক্স চিডির শট পোস্টে প্রতিহত না হলে খেলার ফল অন্যরকম হতেই পারত। তবে শেষমেশ ক্লিনশিট রেখে একমাত্র গোলেই তিন পয়েন্ট নিশ্চিত হয় লাল-হলুদের।