ইসলামাবাদঃ  মঙ্গলবার বিকেলে আচমকাই কেঁপে ওঠে ভারতের একাংশ। কিন্তু ভারতে তেমন ভয়াবহতা দেখা যায়নি। ভূমিকম্পের আসল উৎসস্থল ছিল পাক অধিকৃত কাশ্মীরে। আর সেই কম্পনের ব্যাপক প্রভাব পড়ে পাকিস্তানের একাংশে। সেখানে হওয়া ভয়াবহ এই ভূমিকম্পে ক্রমশ বাড়ছে মৃতের সংখ্যা।

সেখানে মৃতের সংখ্যা একধাক্কায় পৌঁছে গিয়েছে ৪০। তবে সংখ্যাটা আরও বাড়বে বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। কারণ ভয়াবহ এই ভূমিকম্পে প্রায় সাড়ে চারশেরও বেশি মানুষ গুরুতর আহত হয়েছেন। যাদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে।

ভয়ঙ্কর এই ভূমিকম্পের পর পাকিস্তানের বেশ কিছুটা অংশ কার্যত ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। রিখটার স্কেলে কম্পনের মাত্রা ছিল ৫.৮। ঘটনার পর পাকিস্তানের বিভিন্ন জায়গার মানুষ সোশ্যাল মিডিয়ায় সেইসব ছবি পোস্ট করেছেন। যেখানে দেখা যায় রাস্তায় রাস্তায় বড় বড় ফাটল। কোথাও কোথাও সেই ফাটলের ভিতর ঢুকে গিয়েছে ছোট-বড় গাড়ি।

পাক সংবাদমাধ্যম ‘ডন নিউজ’-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, ইসলামাবাদ, রাওয়ালপিন্ডি, পেশোয়ার, লাহোর- সব শহরেই কম্পন অনুভূত হয়েছে। পাক অধিকৃত কাশ্মীরের মীরপুরে এই কম্পনের উৎসস্থল, যা পঞ্জাবের ঝিলম নদী থেকে ১৪ মাইল দূরে। ঝিলম ও মীরপুরের মাঝে সবথেকে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। কম্পনের উৎসস্থল ছিল মাত্র ১০ কিলোমিটার গভীরে। ভারতের মৌসম ভবনের রিপোর্ট অনুযায়ী, কম্পনের মাত্রা ছিল ৬.৩।

পাকিস্তানে এই কম্পন স্থায়ী হয় ৮-১০ সেকেন্ড।