বেজিং: প্রবল ভূমিকম্পের কারণে প্রাণ হারালেন ১১ জন। একই সঙ্গে জখম হয়েছেন ১২২ জন।

ঘটনাটি পড়শি রাষ্ট্র চিনের। সোমবার রাতে ওই দেশের দক্ষিণ পশ্চিমে সিচুয়ান প্রদেশে ভয়াবহ ভূমিকম্প অনুভূত হয়।

আরও পড়ুন- শীঘ্রই জনসংখ্যায় চিনকে ছাপিয়ে যাবে ভারত: রাষ্ট্রসংঘ

রিখটার স্কেলে সেই কম্পনের তীব্রতা ছিল ছয়। সরকারি হিসেব অনুসারে ওই ঘটনায় কমপক্ষে ১১ জনের প্রাণ গিয়েছে। একই সঙ্গে জখম হয়েছেন ১২২ জন। বেসরকারি মতে দু’টি সংখ্যা অনেকটাই বেশি।

চিনের ভূমিকম্প নেটওয়ার্ক সেন্টারের দেওয়া তথ্য অনুসারে, ওই দিন রাত ১০টা বেজে ৫৫ মিনিট নাগাদ অনুভূত হয় কম্পন। ওই ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল মাত্র ১৬ কিলোমিটার গভীরে। ভূপৃষ্ঠ থেকে অদূরে এই কম্পনের উৎপত্তিস্থল হওয়ার কারণেই তূঈব্রতা বেশি ছিল এবং বেশ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন- অনন্তনাগের এনকাউন্টারে শহিদ মেজর কেতন শর্মা, মঙ্গলবার শেষকৃত্য

ঠিক কত পরিমাণ সম্পত্তির ক্ষতি হয়েছে তা এখনও স্পষ্ট করে জানাতে পারেনি চিনের ভূমিকম্প নেটওয়ার্ক সেন্টারের কর্মকর্তারা। তবে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদন অনুসারে, যুদ্ধকালীন ততপরতায় চলছে উদ্ধারকাজ। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলিতে বিশেষ দল পাঠানো হয়েছে। সেই সঙ্গে পাঠানো হয়েছে ত্রান সামগ্রী।

এই কম্পনের ফলে অনেক জায়গায় রাস্তায় ধ্বস নেমেছে। যার ফলে সড়ক পরিবহন ব্যবস্থায় ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে। সিচুয়ান রাজ্যের অনেক রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন- গুজরাতে নিজের বাবাকে হোয়াটসঅ্যাপ করে স্ত্রীকে তালাক দিল যুবক

চিনের দক্ষিণ পশ্চিমের রাজ্য সিচুয়ানের ভূমিকম্প প্রবন অঞ্চল হিসেবে ‘সুনাম’ রয়েছে। এর আগেও একাধিকবার এই এলাকার মাটি কেঁপে উঠেছে। ধারাবাহিক ভূমিকম্পও দেখা গিয়েছে ওই এলাকায়। তবে এত বড় মাপের কখনও ঘটেনি। রিখটার স্কেলের হিসেব অনুসারে এর আগে সর্বোচ্চ ৫.৩ মাত্রার ভূমিক্মপ হয়েছে সিচুয়ানে।