নয়াদিল্লি: রেলের কর্মী নন, তাতে কি হয়েছে? তাতে আপনার রোজগার বন্ধ হবে না৷ বরং রেল থেকে আসবে উপরি আয়৷ শুধু তাই নয়, মাসে অন্তত ৮০হাজার টাকা পেতে পারেন রেলের এই কাজ করে৷ তার জন্য আপনাকে জানতে হবে কিছু নিয়ম৷ তবে খুব সহজ সেই নিয়ম জেনে টাকা উপার্জন করা কোনও জটিল ব্যাপারই নয়৷

আইআরসিটিসির মাধ্যমে এই রোজগার শুরু করতে পারেন আপনি৷ প্রতিদিন টিকিট বুকিংয়ের কাজ আসতে পারে আপনার কাছে৷ এজন্য অফার দিচ্ছে ইণ্ডিয়ান রেলওয়ে ক্যাটারিং অ্যাণ্ড ট্যুরিজম কর্পোরেশন লিমিটেড বা আইআরসিটিসি৷ এই সংস্থা টিকিট বুকিংয়ের জন্য লোক নিয়োগ করছে৷ এই নিয়োগের সুবিধা আপনি নিলে, খুব সহজেই হয়ে যেতে পারেন রেল ট্র্যাভেল সার্ভিস এজেন্ট বা আরটিএসএ৷

আরও পড়ুন : আসছে চিপ বসানো ই-পাসপোর্ট, মিলবে নতুন সুবিধা

আইআরসিটিসির হয়ে টিকিট বুকিং করলে আপনি পেতে পারেন আকর্ষণীয় কমিশন৷ আরটিএসএ-এই পদটি জোনাল রেলওয়ের কমার্শিয়াল বিভাগের অনুমোদিত এজেন্ট৷ নিজের শহরের জন্যই এই এজেন্টরা টিকিট বুক করতে পারবেন৷ আরটিএসএ নিজের দেওয়া এলাকা ভিত্তিতে কাজ করবেন বলে জানানো হয়েছে৷

এজন্য কি কি করতে হবে?

প্রথমেই আইআরসিটিসির ওয়েবসাইটে যান৷ সেখানে ১০ হাজার টাকার একটি ডিমাণ্ড ড্রাফট জমা দিতে হবে৷ এই ড্রাফটে লেখা থাকবে in favour of IRCTC payable at New Delhi only৷

আরও পড়ুন : উপার্জন দ্বিগুণ করতে বেসরকারি বিনিয়োগে জোর মোদী সরকারের

তবে আরটিএসএ যদি মাঝপথে নিজের এজেন্ট পদ তুলে নিতে চান, তবে ফেরত পাবেন এই টাকার অর্ধেক বা পাঁচ হাজার টাকা৷ তবে এজেন্ট পদ পুনর্নবীকরণ করাতে চাইলে প্রতি বছর পাঁচ হাজার টাকা করে দিতে হবে আইআরসিটিসিকে৷

কীভাবে আইআরসিটিসির এজেন্ট হবেন

অনুমোদিত এজেন্ট হতে গেলে প্রথমে ১০০ টাকার স্ট্যাম্প পেপারে একটি চুক্তি করতে হবে৷ এজন্য আইআরসিটিসির নামে দিতে হবে ২০ হাজার টাকার ডিমাণ্ড ড্রাফট৷ আইআরসিটিসির রেজিস্ট্রেশন ফর্মে এই ড্রাফটের কপি অ্যাটাচ করতে হবে৷ এজন্য দরকার হবে third personal digital certificate৷ এছাড়াও প্রয়োজন জোনাল রেলওয়ে থেকে একটি চিঠি৷ লাগবে প্যান কার্ড, গত কয়েক বছরের আয়কর জমার রসিদ ও অ্যাড্রেস প্রুফ৷

এজেন্ট পদ পেয়ে গেলে, নিজের মত করে টিকিট বুকিং করা শুরু করতে পারবেন আপনি৷ আরটিএসএ নিজে থেকে গ্রাহক বা টিকিট বুকিংকারীকে বিল দিতে পারেন৷ তবে আইআরসিটিসির প্যাডেও বিল করতে পারেন তিনি৷