কলকাতা:  যে সব যাত্রী দূর পাল্লার ট্রেনে হাওড়া স্টেশনে আসেন, ট্যাক্সি পাওয়া নিয়ে তাঁদের হয়রানির অভিযোগ ওঠে হামেশাই। এবার সেই হয়রানি কমাতেই স্টেশন চত্বরে ই-ট্যাক্সি পরিষেবা চালু করল হাওড়া সিটি পুলিশ। বুধবার, এর সূচনা করেন হাওড়ার ডিআরএম আর বদ্রিনারায়ণ এবং হাওড়ার পুলিশ কমিশনার অজেয় রানাডে। কমিশনার জানান, এই পরিষেবায় অনলাইনে ট্যাক্সি বুক করা যাবে ৬০ দিন আগে। টিকিট পাওয়ার জন্য হাওড়া স্টেশনে মেশিন বসানো হচ্ছে। হাওড়ায় নেমে ওই মেশিনে বুকিং নম্বর টাইপ করলেই টিকিট বেরিয়ে আসবে। তা প্রি-পেড ট্যাক্সি বুথে দেখালেই চলে আসবে ট্যাক্সি। বুকিং বাতিল করলে যাত্রীর অ্যাকাউন্টে টাকা ফেরত চলে যাবে। কমিশনারের দাবি, যাত্রী পরিষেবায় আরও স্বচ্ছতা আনতেই এই ব্যবস্থা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।