নয়াদিল্লি: করোনা ভাইরাস যাতে ছড়িয়ে না পড়ে তার জন্যই দেশজুড়ে এখন লকডাউন চলছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক ১৯ এপ্রিল জানিয়ে দিল, দেশজুড়ে লক ডাউন চলাকালীন অত্যাবশ্যকীয় নয়( non essential) এমন পণ্য ই-কমার্স সংস্থার মাধ্যমে সরবরাহ নিষিদ্ধ থাকছে।

প্রসঙ্গত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের পক্ষ থেকে এমন নির্দেশ এলো যখন ই-কমার্স সংস্থাগুলি নড়েচড়ে উঠেছিল অত্যাবশ্যকীয় নয় এমন পণ্য (যেমন মোবাইল ফোন, রেফ্রিজারেটর ইত্যাদি) ডেলিভারি দেওয়ার জন্য গ্রাহকদের কাছে সেই সব জায়গায় ডেলিভারি দেওয়ার যেখানটা করোনাভাইরাস জনিত হটস্পট অঞ্চল নয়। যেহেতু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক ১৫ এপ্রিল তেমন পণ্য ডেলিভারি দেওয়া যাবে বলে নির্দেশিকা দিয়েছিল।

ভারতে প্রথমে দেশজুড়ে লকডাউন জারি করা হয়েছিল ২১ দিনের জন্য। কিন্তু পরিস্থিতি পর্যালোচনা করার পর লক ডাউনের মেয়াদ আরো বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আপাতত তা জারি রয়েছে ৩মে পর্যন্ত। কারণ করোনা ভাইরাসের কেসের সংখ্যা বেড়ে চলেছে।

লকডাউনের প্রথম পর্যায় ২৪ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল কেন্দ্র শুধুমাত্র অত্যাবশ্যকীয় পণ্য (যেমন খাদ্য, ওষুধপত্র এবং মেডিকেল ইকুইপমেন্ট) ডেলিভারি করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল এইসব ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে। তবে ১৫ এপ্রিল সরকার ই-কমার্স কোম্পানিগুলিকে কেমন ভাবে কাজ করতে ‌ হবে সেই বিষয়ে গাইডলাইন দিয়েছিল। সেই গাইডলাইন অনুসরণ করে আবার বিভিন্ন রাজ্য যেমন মহারাষ্ট্র রাজস্থান ওড়িষা কেমন হবে কাজ করবে ই-কমার্স সংস্থাগুলি সেই বিষয় নির্দেশিকা দেয়। রবিবার আবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের পক্ষ থেকে রাজ্যগুলিকে চিঠি দিয়ে এই বিষয়ে নয়া অবস্থান জানাল।

প্রসঙ্গত, কংগ্রেসের পক্ষ থেকে শনিবার প্রশ্ন তোলা হয়েছিল অত্যাবশ্যকীয় নয় এমন পণ্য ই-কমার্স প্লাটফর্মে অনুমতি দেওয়া হচ্ছে অথচ প্রথাগত দোকানদারদের দেওয়া হচ্ছে না কেন?

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ