স্টাফ রিপোর্টর, দুর্গাপুর: অবশেষে দীর্ঘ প্রায় ৩৬ ঘণ্টার চেষ্টায় দুর্গাপুর ব্যারেজের ভেঙে পড়া এক নম্বর লকগেটটি সংস্কার করা হল৷ এদিন দুপুর ২টো নাগাদ সেখানে নতুন লোহার গেট দাঁড় করানো হয়৷ অন্য লকগেটগুলিও শীঘ্রই সংস্কার করা হবে বলে জানিয়েছেন সেচ দফতরের বাস্তুকার জগবন্ধু বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনি বলেন, ‘‘শীঘ্রই ব্যারেজের বাকি ৩১টি লকগেটও সংস্কার করা হবে৷’’

সেচ দফতর সূত্রের খবর, প্রাথমিকভাবে লকগেটটি সংস্কার করা হয়েছে৷ ব্যারেজের জল বাড়লে অস্থায়ীভাবে একটি ফ্লোটিং গেট লাগানো হবে৷ জানা গিয়েছে, এদিনই মাইথন থেকে জল ছাড়া হচ্ছে৷ সেই জল দুর্গাপুর ব্যারেজে এসে পৌঁছলে জল সমস্যার কিছুটা সুরাহা হবে৷

স্বাধীনতার পরে ’৫৩ সালে দুর্গাপুর ব্যারেজ তৈরি হয়৷ ’৫৫সালে ৩২টি লকগেট লাগানো হয়৷ সেচ দফতর সূত্রের খবর, তারপর থেকে কখনও এই লকগেটের সংস্কার করা হয়নি৷ ফলে দীর্ধনি ধরে জলে ভিজে, পলি মাটির জেরে লকগেটগুলি ভঙ্গুর হয়ে পড়ে৷ তারই জেরে শুক্রবার ভোররাতে লকগেটের এক নম্বর গেটটি ভেঙে পড়ে৷ স্বভাবতই সব জল বেরিয়ে যাওয়ায় দামোদর কার্যত ফাঁকা মাঠে পরিণত হয়েছে৷ স্বভাবতই, দুর্গাপুর সহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় তীব্র জলকষ্ট দেখা দিয়েছে৷ এদিন সকাল থেকেই ব্যারেজের সামনে ভিড় করেন হাজার হাজার মানুষ৷ যদিও ব্যারিকেড তৈরি করে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় ৩৬ ঘণ্টা পর লকগেট সংস্কার করেছেন সেচ দফতরের ইঞ্জিনিয়ররা৷