কলকাতা: কয়েকদিন ধরে আশ্বিনের আকাশে চলছে রোদের ইকির-মিকির খেলা৷ পেঁজা তুলোর মত সাদা মেঘ জানান দিচ্ছে পুজো আসছে৷ রোদ ওঠায় চওড়া হাসিও ফুটে ছিল কুমোরটুলির শিল্পীদের মুখে। কারন এবার তারা শেষ মুহূর্তের কাজ অর্থাৎ প্রতিমার গায়ে রঙের প্রলেপ দিতে পারবেন।

গত কয়েক বছর ধরে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসবের আনন্দে বাঁধ সাজছে অসুর বৃষ্টি। বৃষ্টির মরসুম শেষ হয়ে গেলেও এই রাজ্য থেকে পাকাপাকি ভাবে বর্ষা বিদায় নেয় অক্টোবর মাসের ৮ তারিখ নাগাদ। কিন্তু বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া একটি নিম্নচাপের সৌজন্যে কলকাতা থেকে বৃষ্টি বিদায় নিতে নিতে অক্টোবরের শেষ সপ্তাহ। যার ফলে মহালয়ার আগে বৃষ্টি না হলেও দিন তিনেকের মধ্যে ফের বৃষ্টিতে ভিজবে মহানগর। তেমনটাই খবর জানাচ্ছে আবহাওয়া অফিস।

আরও পড়ুন : ‘পুলিশের কাজ রাজ্যপাল করেছে’ অমিত শাহকে চিঠি দিলীপের

ক’দিন রোদ পেয়ে জোর কদমে চলছে পুজোর বাজার, মণ্ডপে মণ্ডপে চলছে শেষ পর্বের প্রস্তুতি। এর মধ্যে আবার বৃষ্টি শুরু হলে ফের বিপত্তিতে পড়বে আমজনতা থেকে পুজো উদ্যোক্তারা। আবহাওয়া অফিস থেকে জানানো হচ্ছে, আগামী সোমবার অর্থাৎ ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে ফের বৃষ্টি শুরু হতে পারে রাজ্যে। এই বৃষ্টি চলবে ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। যার জেরে আগামী ২৬ এবং ২৭ সেপ্টেম্বর বুধ এবং বৃহস্পতিবার কলকাতায় প্রচুর বৃষ্টি হবে৷

আলিপুর জানাচ্ছে, মঙ্গলবার নাগাদ পূর্ব ও মধ্য বঙ্গোপসাগরে একটি নতুন করে নিম্নচাপ তৈরি হতে পারে৷  নিম্নচাপটি অন্ধ্রপ্রদেশ উপকূলের দিকে সরে যেতে পারে, কিন্তু তাতেও এবার বৃষ্টির হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না বঙ্গবাসী। মনে করা হচ্ছে এই নিম্নচাপটির প্রভাবে পালে হাওয়া পাবে পূবালী বাতাস, যার জেরে নতুন করে আবার বাংলায় সক্রিয় হয়ে উঠবে বর্ষা। যদিও একটানা শুকনো আবহাওয়ার পর ফের বৃষ্টি হলে আখেরে চাষীদের লাভ। কিন্তু পুজোর মুখে বৃষ্টিতে আবার নতুন করে ভিজতে না পসন্দ বাঙালির।

আরও পড়ুন : জলপাইগুড়ি রাজবাড়ির দুর্গাপুজো এবার ৫১০ বছরে পা দিল

প্রসঙ্গত, গত বছরও পুজোতে ভুগিয়েছিল ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’। গত বছর মহালয়ার আগে ওড়িশা উপকূলে তৈরি হওয়া ঘূর্ণিঝড় তিতলি মহালয়ার পরে পুজোর শুরুর মুখে দুর্বল হয়ে আছড়ে পড়েছিল বাংলাতে। যার ফলে কম ভোগান্তি পোহাতে হয়নি পুজো উদ্যোক্তাদের। এখনও পর্যন্ত যা খবর, তাতে মহালয়ার আগে বৃষ্টির আভাস সেইভাবে না থাকলেও মহালয়ার পর থেকে আবার বৃষ্টি শুরু হবে৷ ভাসতে পারে মহালয়াও৷