স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : দিদির কানন তাঁর বান্ধবী বৈশাখীকে নিয়ে যোগ দিলেন গেরুয়া শিবিরে। আর তা নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়ের শ্বশুর দুলাল দাস।

বুধবার দিল্লিতে গিয়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন শোভন ও বৈশাখী। আর এরপরেই কলকাতা পুরসভার প্রাক্তন মেয়রকে নিয়ে তাঁর শ্বশুর দুলাল দাসকে প্রশ্ন করা হলে, তিনি জানান, শোভন বলেছে নৈতিকতার কারণেই তৃণমূল দলটা ছাড়লাম। নৈতিকতার কথা বলছে। আসলে নিজেই তো অনৈতিক জীবন-যাপন করছে। ঘরে স্ত্রী ছেলে-মেয়ে থাকতে বান্ধবীকে নিয়ে অন্যত্র দিনের পর দিন থাকছে। দুলাল দাস আরও জানান , নৈতিকতার কথা বলে যেখানে গিয়েছে সেখানে আরও অধঃপতন হবে তার।

শ্বশুরের আগে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে কটাক্ষ করেন স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়। তিনি জানান ,এটা শোভনের পতনের সূচনা, ওঁর মাটিতে পড়ার অপেক্ষায় রইলাম। রত্না আরও জানান , “রাজনৈতিক উত্থানের সবটা দেখেছি। শুরু থেকে দেখেছি। আজ পতনের সূচনাটা দেখলাম। যেদিন মাটিতে পরবে সেদিনটাও দেখার অপেক্ষায় রইলাম। যদিও শোভন-রত্নার মধ্যে এখন বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা চলছে।

শুধু শোভন নয় এদিন ফের বৈশাখীকে আক্রমণ করে রত্না বলেন , বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় কিভাবে নেত্রী হলেন সেটা আমার জানা নেই। ওকে দলে নিয়ে খুব সুবিধা করতে পারবে না বিজেপি। আর এটাও বিজেপির জন্য লজ্জার যে এমন একজন মহিলাকে তারা দলে নিল যে অনেক পরিবার ভেঙেছে।

বুধবার দিল্লিতে গেরুয়া উত্তরীয় গলায় পরার পর মুকুল রায়ের সঙ্গে কোলাকুলি করতে দেখা যায় শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। উত্তরীয় পরার পর বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখা যায় মুকুল রায়ের পা ছুঁয়ে প্রণাম করতে। এদিন শোভন চট্টোপাধ্যায়ের যোগদানের পরে বিজেপি নেতা মুকুল রায় আগামী পুরসভা নির্বাচনে কলকাতা দখলের কথা বলেন। সেই প্রসঙ্গে রত্না বলেন, এটা বিজেপির দিবাস্বপ্ন। শোভন চট্টোপাধ্যায়কে দেখে কেউ তৃণমূল কংগ্রেসকে ভোট দেয় না। ভোট দেয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখে।