তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: অবৈধ ও ওভারলোডিং বালি পরিবহণের ফলে ইসিএল নিয়ন্ত্রণাধীন রাস্তা বেহাল হয়ে পড়েছে। এই অভিযোগ তুলে বাঁকুড়ার মেজিয়ার কালিদাসপুর খনির কয়লা পরিবহণ বন্ধ করে দিল তৃণমূল সমর্থিত শ্রমিক সংগঠন আই.এন.টি.টি.ইউ.সি। বৃহস্পতিবার কয়লা পরিবহণ বন্ধের পাশাপাশি কালিদাসপুর কয়লা খনির এজেন্ট ম্যানেজারকে ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন ওই সংগঠনের সদস্যরা।

বিক্ষোভকারীদের দাবি, রাতের অন্ধকারে অবৈধভাবে ওভারলোডিং বালি পরিবহণের ফলে ইসিএল নিয়ন্ত্রনাধীন কালিদাসপুর থেকে ভাড়া হাই স্কুল পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার রাস্তা বেহাল হয়ে পড়েছে। প্রায়শই ছোটো বড় দূর্ঘটনা ঘটছে। সমস্যায় পড়ছেন এলাকার সাধারণ মানুষ থেকে কোলিয়ারিতে কর্মরত শ্রমিকরা। অবৈধ বালি গাড়ি চলাচল বন্ধ করে রাস্তা সংস্কারের দাবি জানালেও ইসিএল এর তরফে কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। সেকারণেই বিপদসংকুল পথে কয়লা পরিবহণ বন্ধ করে আন্দোলনে নামা হয়েছে বলে আই.এন.টি.ইউ.সি সূত্রে জানানো হয়েছে।

আই.এন.টি.ইউ.সি নেতা রাম নিরঞ্জন আচার্য বলেন, কালিদাসপুর থেকে ভাড়া হাই স্কুল পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার রাস্তা বেহাল। বিষয়টি বার বার ইসিএল কর্তৃপক্ষের নজরে আনা হয়েছে, কোনও কাজ হয়নি। এই রাস্তায় প্রায়শই দূর্ঘটনা ঘটছে দাবি করে তিনি বলেন, আমরা বাধ্য হয়েই এই রাস্তায় কয়লা পরিবহন বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছি। আই.এন.টি.ইউ.সি-র দাবিকে সমর্থণ জানিয়েছেন এলাকার মানুষও। স্থানীয় বাসিন্দা মিলন গোপ, আলাউদ্দিন শেখরা বলেন, বছর দেড়েক আগেও এই রাস্তা ভালো ছিল। ধারাবাহিকভাবে অবৈধ বালি বোঝাই লরি ও ইসিএলের কয়লা বোঝাই ভারী গাড়ি যাতায়াতের ফলে রাস্তাটি সম্পূর্ণ ভেঙ্গে পড়েছে।

এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট কোলিয়ারির ম্যানেজার নরেশ সরকার কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি। তিনি বলেন, এবিষয়ে সাংবাদিকদের সামনে মন্তব্য করার কোনও অধিকার আমার নেই। সেকারণেই তারপক্ষে এবিষয়ে কিছু বলা সম্ভব নয় বলেই তিনি জানিয়েছেন।