Mumbai Viral Video

মুম্বাইঃ সেই সোশ্যাল মিডিয়ার পর্দা! যেখানে চোখ রাখলেই কতই না আজব-অদ্ভূত আর অজানা দৃশ্য চোখে পড়ে। যা দেখে নেট জনতারা কখনও মানবিকতার উজ্জ্বল নিদর্শন, কখনও চক্ষুচড়ক গাছ, তো হেসে লুটোপুটি খায়। তাই তো সময় পেলেই বা কাজের ফাঁকে কিছুক্ষণের জন্য তাঁরা ঘুরে যায় সোশ্যাল মিডিয়া থেকে। মুঠোবন্দী এই স্মার্টফোনই আজ মানুষের কাছে বিনোদনের অন্যতম উপকরণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। যা দেয় তাঁদের ক্ষণিক সময়ের জন্য স্বস্তিও। নেটিজেনরাও তাই মুঠোবন্দী ফোনে খুঁজে বেড়ায় সেই সব স্বস্তিদায়ক দৃশ্য। তবে এবার এক শিউরে ওঠার মতো ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল (Viral) হয়েছে, যা দেখে চক্ষু জোড়া চড়কগাছ হওয়ার উপক্রম নেটিজেনদের।

পথেঘাটে চলতে গিয়ে এমন অনেক ঘটনা ঘটে যা সবাইকে অবাক করে দেয়। কখনও একজন ব্যক্তির জীবন কয়েক সেকেন্ডের বিলম্বের কারণে হারিয়ে যায়, আবার কখনও বেঁচেও যায়। দেশের একাধিক রাজ্যে ঘূর্ণিঝড় তাউকতে (Cyclone Tauktae) তার তাণ্ডব চালিয়ে যাচ্ছে। সেখান থেকে উঠে আসছে একেরপর এক মর্মান্তিক দৃশ্য। মুম্বাইতেও এই ঝড়ের কারণে অনেক জায়গায় গাছ আছড়ে পড়েছে, সাথে প্লাবিতও হয়েছে অনেক অঞ্চল। সেখান থেকেই এবার একটি ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে তুমুল ভাইরাল (viral Video) হচ্ছে। মুম্বাইয়ের একটি অঞ্চলের সিসিটিভিতে বন্দী ওই ভিডিওতে আপনি দেখতে পাবেন কীভাবে এক মুহুর্তে একজন মহিলা একটি বড় দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে ফিরলেন।

এই ঘটনাটি মুম্বইয়ের (Mumbai) বিক্রোলি অঞ্চল থেকে। সিসিটিভি ক্যামেরায় বন্দী এই ভিডিওতে আপনি দেখতে পাবেন যে এক মহিলা কীভাবে বৃষ্টির সময় ছাতা নিয়ে রাস্তায় হাঁটছেন। কিছু গাড়িও তার পাশ দিয়ে চলাচল করছে। এদিকে কয়েক ধাপ হাঁটার পরে মহিলাটি হঠাৎ পিছনের দিকে দৌড়াতে শুরু করেন। তারপরে একটি বড় গাছ মুহুর্তের মধ্যে রাস্তায় উপচে পড়ে। সেই সময় যেখানে গাছ পড়েছিল সেই জায়গার কাছে কেবল ওই মহিলাই ছিল। যদি মহিলাটি তৎক্ষণাৎ ওই জায়গা থেকে পালাতে না পারতেন, তাহলে তার সাথে একটি বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারত।

ওই জনবহুল রাস্তায় যেভাবে গাছটি ভেঙে পড়েছিল, তাতে বড়সড় ক্ষতিও হতে পারত। তবে কৃপা ঈশ্বরের যে, ওই সময় সেখানে মহিলা ছাড়া আর কেউ ছিল না এবং মহিলাও সঠিক সময়ে সেখান থেকে পালালেন। অন্যদিকে রি ঘূর্ণিঝড় তাউকতের তাণ্ডবে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে মুম্বাইয়ে। সেখানে ‘বার্জে পি ৩০৫’ জাহাজটিও ঝড়ের কারণে সমুদ্রে আটকে গিয়েছিল, যাতে ছিল মোট ২৭৩ জন যাত্রী। তথ্য অনুযায়ী, এই ১৭৭ জন যাত্রীকে এখনও পর্যন্ত রক্ষা করা হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.