শঙ্কর দাস, বালুরঘাট: ওঁরাই প্রথম পাড়া ও গ্রামে ঘুরে বের করেন কারও শরীরে করোনার কোনও উপস্বর্গ রয়েছে কি না। ওঁরাই তাঁদের খুঁজে নিয়ে পৌঁছে দিচ্ছেন স্বাস্থ্য ব্যবস্থার আওতায়। করোনা যুদ্ধের প্রথম সারিতে কর্মরত সেই সৈনিকদের বিশেষ সম্মান প্রদানের মাধ্যমে উৎসাহিত করল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা প্রশাসন।

গ্রীনজোন দক্ষিণ দিনাজপুরে মঙ্গলবার পর্যন্ত যতজনের নমুনা পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে তার সবকটি রেজাল্ট নেগেটিভ। অন্যান্য এলাকার মতো গ্রীন জোন দক্ষিণ দিনাজপুরেও প্রতিদিন ভিনরাজ্য ও রেডজোন থেকে যথাক্রমে পরিযায়ী শ্রমিক সহ বহু মানুষ ফিরে আসছেন। এই পরিস্থিতিতে একেবারে শুরুর দিন থেকে যে সকল করোনা যোদ্ধারা মাঠে নেমে কাজ করে চলেছেন তাঁদের এদিন প্রশাসনের তরফে উৎসাহিত করা হলো।

বিশেষ করে আশা এএনএম ডাক্তার নার্স পুলিশ ও সাফাইকর্মী সবার হাতে জেলা প্রশাসন আলাদা ভাবে “এপ্রিসিসিয়েশন” সার্টিফিকেট তুলে দিচ্ছে। যাতে তাঁরা সকলে উৎসাহিত হয়ে আরও ভালোভাবে করোনার বিরুদ্ধে চলা যুদ্ধে দেশ জয়লাভ করে। বালুরঘাটে জেলা প্রশাসনিক ভবনে সম্মান প্রদান এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলাশাসক নিখিল নির্মল স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ কিশলয় দত্ত ডিআইজি প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, পুলিশ সুপার দেবর্ষি দত্ত প্রশাসনের অন্যান্য কর্তাব্যক্তিরা।

এদিন ডিআইজি প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত থেকে অ্যাপ্রিসিয়েশন সার্টিফিকেট পেয়ে সেকেন্ড-এএনএম শম্পা কুন্ডু জানিয়েছেন একজন স্বাস্থ্যকর্মী হিসেবে মানুষের সেবার জন্য তারা অঙ্গীকারবদ্ধ। তবুও প্রশাসনের কাছ থেকে এই সম্মান পেয়ে তাদের দায়িত্ব আরো বেড়ে গেল। সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন তার মত যোদ্ধারা নিজেদের পরিবার-পরিজন ও প্রাণের মায়া ত্যাগ করে বাইরে কাজ করছেন সকলকে রক্ষা করবার জন্য। এমতাবস্তায় সবার উচিত প্রশাসনের নির্দেশ মেনে চলা।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV