নয়াদিল্লি: নজরে কর্মসংস্থান৷ তাই উঠে যাচ্ছে ন্যূন্যতম শিক্ষাগত যোগ্যতার মাপকাঠি৷ অষ্টম শ্রেণি পাশ না করলেও এবার মিলবে গালি চালানোর লাইসেন্স৷ সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের সড়ক পরিবহণ মন্ত্রকের৷

সেন্ট্রাল মোটর ভেহিকল অ্যাক্ট (১৯৮৯) অনুযায়ী পরিবাহী গাড়ি চালানোর সাইসেন্স পেতে থাকতে হবে ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা৷ এক্ষেত্রে অষ্টম শ্রেণি পাশের কথা উল্লেখ ছিল৷ মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণ মন্ত্রেকর তরফে জারি করা বিবৃতিতে বলা হয়েছে, দরিদ্র পরিবারের সদস্যদের কর্মসংস্থার বাড়াতে সরকারের বিশেষ পদক্ষেপ৷ গালি চালানোর লাইসেন্স পাওয়ার ক্ষেত্রে ন্যূন্যতম শিক্ষাগত যোগ্যতা তুলে দেওয়া হচ্ছে৷

পরিবহণ মন্ত্রক মনে করছে কর্মসংস্থান বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এর ফলে বাড়বে পরিবহণ ও লজিস্টিক্স শিল্পে ২২ লক্ষ গাড়ির চালকের ঘাটতি৷ বৃদ্ধি ঘটবে এই ক্ষেত্রের বৃদ্ধি৷

কেন্দ্র ইতিমধ্যেই মটর বেহিকেল অ্যাক্ট পরিবর্তনের কাজ শুরু করে দিয়েছে৷ এই সংক্রান্ত খসড়া বিজ্ঞপ্তিও প্রকাশ করা হবে অল্প কিছুদিনের মধ্যেই৷ সড়ক পরিবহণের এক বৈঠকে হরিয়ানা সরকার প্রথম এই প্রস্তাব দিয়েছিল৷ ওই রাজ্যের পিছিয়ে পড়া মেওয়াটে ন্যূনতম যোগ্যতা তুলে দেওয়ার দাবি পেশ করা হয়৷ একদিকে কর্মসংস্থান, অন্যদিকে ওই অঞ্চলে পরবহণ ঘাটতিমেটাতেই ছিল প্রস্তাব৷ তাদের দাবি ছিল শিক্ষাগত যোগ্যতার থেকে গাড়ি চালানোর জন্য চালকের দক্ষতার উপর গুরুত্ব দেওয়া প্রয়োজন৷

তবে, পথ সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে প্রশিক্ষণরত গাড়ির চালকদের দক্ষতার উপর বিশষ গুরুত্ব আরোপের কথা বলেছে৷ এই ক্ষেত্রে আগের তুলনায়ও নতুন ধারায় কড়া হওয়ার কথা বলা হবে বলে মনে করা হচ্ছে৷ পরীক্ষাও আরও আঁটোসাঁটো হবে৷ নজরদারি থাকবে গাড়ি চালানোর স্কুলগুলির উপরও৷