কলকাতা: গরমকালে আমরা অনেকেই বারবার তেষ্টায় বেশি করে জল পান করে ফেলি। এবার গরমের মস আসার আগেই যেভাবে খেল দেখাচ্ছে সূর্যের তাপ তাতে এখুনি টেকা দায়। তবে বেশি জল পান করা কিন্তু খারাপ। এর খুব খারাপ প্রভাব পড়তে পারে আপনার শরীরে। কিন্তু আমরা জানি জল জীবন। সেই জল কীভাবে নিতে পারে জীবন? ডায়েটের জলের বাইরে বেশি জল পান করলেই বিপদ।

দেখা যায় যে কেউ সারাদিন বোতলের পর বোতল জল পান করে ফেলছেন। কেউ আবার এক বোতল জল শেষ করতেই হাঁপিয়ে উঠছেন। এটা কোনোটাই ঠিক নয়। গবেষকরা এটাই বলছেন। বেশি জল পান করলে নাকি শরীরে সোডিয়াম কমে যায়। জলের পরিমাণ শরীরে কমে যাওয়ার ফলে মস্তিষ্কে হাইড্রেশিন সেন্সিং মেকানিজম যেমন তা বুঝে যায় তেমন জল বেড়ে গেলে তেমনটা হয় না। ফলে ক্যালসিয়াম চ্যানেলগুলি জেগে যায়। এগুলি আসলে শরীরে জলের ভারসাম্য রক্ষা করে থাকে।

হাইপোন্যাট্রেমিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের বেশি। জল বেশি পান করলে সেই সম্ভাবনা আরো বেড়ে যায়। মাথা ফুলে গিয়ে মরে যাওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। আবার হৃৎপিণ্ডও বিকল হতে পারে। জলের পরিমাণ শরীরে হঠাৎ করে বাড়তে থাকলে তা সহজে ধরা যায় না। এদিকে জল পান না করেও থাকা যাবে না। কতটা জল খাওয়া উচিত এটা নিয়ে নিশ্চয় ভাবনায় পড়লেন আপনি। একটা সহজ ফর্মুলা মাথায় রাখুন আপনারা।

এর জন্য প্রথমে নিজের ওজন সঠিক ভাবে মেপে নিন। শরীরের ওজন যত কেজি হবে ওই সংখ্যাকে ৩০ দিয়ে ভাগ করে ফেলুন। যে সংখ্যাটা পাবেন শেষে ঠিক তত লিটার জল দৈনিক আপনার শরীরের জন্য পান করতেই হবে। রোজ ওয়ার্কআউট বা হাঁটাহাঁটি যারা করেন তারা অজান্তেই বেশি পান করে ফেলেন জল। প্রতিদিন সবজি, ফল বেশি করে খেলে জল কিছুটা কম পরিমাণে পান করলেও সেক্ষেত্রে বিশেষ কোনো ক্ষতি নেই।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.