কলকাতা: রোজ নিয়ম করে পারিশ্রমিক নিয়ে দাঁত তোলেন চিকিৎসক মোদী সরকার। যদিও তাঁর জন্ম ২০১৪সালের মে মাসে হয়নি। তাঁর ক্রিয়াকলাপ নিয়ে উত্তাল হয়নি কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী সহ সমগ্র বিশ্ব। তবুও তিনি মোদী সরকার। চিকিৎসক মোদী সরকার। গুজরাতি নন, বাঙালি।

দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএ আর গুজরাত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএ করেননি তিনি। তাঁর ডিগ্রি প্রধানমন্ত্রীর থেকে অনেক বেশি। সেইসঙ্গে বিতর্ক মুক্ত। বাঙালি চিকিৎসক মোদী সরকার দন্ত বিশেষজ্ঞ। বাড়ির সামনে রাখা নামের ফলক অনুসারে তিনি এই রাজ্য থেকেই বিজ্ঞান বিভাগের স্নাতক। সেইসঙ্গে এলডিএস এবং এসএমএফ পাশ করেছেন পশ্চিমবঙ্গ থেকেই। এখানেই শেষ নয়, রানির দেশে গিয়েও লেখাপড়া করেছেন তিনি। ইংল্যান্ড থেকে এলডিএস এবং আরসিএস করেছেন বঙ্গতনয় ডাঃ মোদী সরকার।

modi-sarkar
ডাক্তারবাবুর নামের ফলক

আরও পড়ুন: সংগ্রামী ইতিহাস নিয়ে রমরমিয়ে চলছে মধুচক্র বিদ্যালয়আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই জলের তলায় শহর! ভারতের নয়া বিষ্ময় ‘মানব চুম্বক’ সেভেন পাস বই দোকানদারই লিখলেন আস্ত উপন্যাস ভারতের এই গ্রামে প্রতিদিন অন্তত একজন আত্মহত্যা করেন!…

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।