কলকাতা: ময়দানের দুই বড় ক্লাবে এক সময় চুটিয়ে খেলেছেন৷ পরে সবুজ মেরুন অ্যাকাডেমির দায়িত্ব নিয়েছিলেন৷ কিন্তু এবার কলকাতায় এলেন অন্য ভূমিকায়৷ এবার তাঁর কলকাতায় আসা আই লিগের নতুন দল মণিপুরের ট্রাউ-এর কোচ হয়ে। বুধবার কল্যাণীতে মোহনবাগানের বিরুদ্ধে নামার আগে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী দেখাল ট্রাউ-এর কোচকে৷

বয়স বাড়লেও চেহারায় বিশেষ পরিবর্তন হয়৷ ময়দানে প্রায় দশ বছর খেলে যাওয়া ডগলাস দ্য সিলভা নতুন ভূমিকায় বাগানের থেকে পয়েন্ট কাড়তে মরিয়া৷ ব্রাজিলিয়ান মিডিও বলেন, ‘আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে নিতে দিন দশেক আগে দল নিয়ে কলকাতায় এসেছি। তিন পয়েন্ট না-হলেও এক পয়েন্ট পেতে চাই।’ বুধবার বাগানের বিরুদ্ধে খেলার পর ট্রাউ খেলবে ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে৷

তবে বাগান ম্যাচ নিয়ে তাঁর মন্তব্য, ‘মোহনবাগান শক্তিশালী দল। ওদের সমীহ করলেও ভয় পাচ্ছি না। গতবারের চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই এফসি-র বিরদ্ধে প্রথম ম্যাচে একটা ভুল করে এক গোলে হেরেছি। চ্যাম্পিয়নদের বিরুদ্ধে ছেলেরা যখন ভয় পায়নি, তখন মোহনবাগানকে ভয় পাওয়ার কারণ নেই৷’ সবুজ-মেরুন তাঁবুতে বসেই বাগান সম্পর্কে ছেলেদের অভয় দেন ট্রাউ-এর কোচ৷

ডগলাস মনে করেন কোচের ইনিংসের শুরুতে কলকাতার দুই প্রধানের বিরুদ্ধে পয়েন্ট কাড়তে পারলে বায়োডাটা ভালো হবে। আই লিগের শুরুতেই অস্বস্তিতে থাকা কিবু ভিকুনার দলকে নাস্তানাবুদ করার এটাই সেরা সময়। স্প্যানিশ প্রশিক্ষণাধীন বাগান সম্পর্কে ডগলাস বলেন, ‘মোহনবাগানে অনেক ভালো ফুটবলার রয়েছে। কিন্তু এখনও দলটা তৈরি হয়নি। যত দিন যাবে, ততই ওরা শক্তিশালী হবে।’

প্রথম ম্যাচ বাগান চার্চিল ব্রাদার্সের কাছে হারলেও তাদের সমীহ করতে ভুলছেন না ট্রাউ-এর কোচ৷ বাগান সম্পর্কে ডগলাস আরও বলেন, ‘চার্চিল ব্রাদার্সের কাছে হারলেও আমি ভিকুনা দলকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছি। ওরা পাসিং ফুটবল খেলার চেষ্টা করছে। আর চেন্নাই সিটির কাছে হারলেও আগের ম্যাচে আমরাও লড়াকু ফুটবল খেলেছি।’