স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: সোমবার সাত সকালে বাঁকুড়ায় জোড়া খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত যুবক অরূপ চৌধুরীকে দু’দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিল বাঁকুড়া সিজিএম আদালত। মঙ্গলবারই জোড়া খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত অরূপ চৌধুরীকে আদালতে পেশ করে বাঁকুড়া সদর থানার পুলিশ। সেখানেই তাকে দু’দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়।

এদিন পুলিশের পক্ষ থেকে অভিযুক্ত অরুপ চৌধুরীকে আদালতে তোলার সময় সংবাদমাধ্যমের সামনে সে খুনের কথা স্বীকার করে। অরূপ বলে, জমিজমা সংক্রান্ত পুরনো বিবাদের জেরেই সে এই কাণ্ড ঘটিয়েছে। একই সঙ্গে সে নিজেকে ‘মানসিক বিপর্যস্ত’ ও জনৈক চিকিৎসক অরবিন্দ কুমারের কাছে চিকিৎসাধীন বলে দাবি করেছে। তবে এই বিষয়ে এখনও কোনও সত্যতা ধরা পড়েনি। তাকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে পুরো ঘটনাটির তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, সোমবার সকালে বাঁকুড়া সদর থানার মগরা গ্রামের অরূপ চৌধুরী নামের বছর ত্রিশের এক যুবক কুড়ুল দিয়ে এলোপাথাড়ি হামলা চালিয়ে খুন করে তার গ্রামেরই দু’জনকে। পুলিশ জানিয়েছে, মৃতরা হলেন লিচু রায় (৬৫)। এবং গুণময় চৌধুরী (৫৬)। এই ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে যায়। জোড়া খুনের ঘটনা চাউর হতেই গ্রামবাসীদের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয় ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।