ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: একটি বেডে তিন বাচ্চা ও তাদের মা৷ চাপাচাপিতে মৃত্যু হল একটি শিশুর৷ চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে জলপাইগুড়ি মাদার চাইল্ড হাবে৷ পরিবারের অভিযোগ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের গাফিলতির কারণে শিশুটির মৃত্যু হয়েছে৷ ময়নাতদন্তের পর মাসকলাইবাড়ি শ্মশানঘাটের পাশে কবর দেওয়া হয়৷

জানা গিয়েছে, গত ১৭ এপ্রিল প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে জলপাইগুড়ি মাদার হাবে ভরতি হয় জলপাইগুড়ি বেগুনটা-রির কাছে শিল্প সমিতি পাড়ার বাসিন্দা দেবযানী দাস (২৫)৷ ওই দিন রাতেই তিনি জন্ম দেয় এক কন্যা সন্তানের৷ তার দুই দিন পর অর্থাৎ ১৯ এপ্রিল তাকে ডাবল বেদে স্থানান্তরিত করা হয়৷ কিন্তু বেডটিতে আগে থেকেই দুই শিশু ও তাদের মা ছিলেন৷ দেবযানী দাস ও তার কন্যা সন্তানকে নিয়ে মোট ছয় জন হয়৷

দেবযানীর পরিবারের অভিযোগ, শনিবার তাঁরা লক্ষ করেন বাচ্চাটির শ্বাস কষ্ট হচ্ছে৷ বিষয়টি কর্তব্যরত চিকিৎসকদের তাঁরা জানায়৷ কিন্তু সেই সময় তারা বিষয়টি কোনও গুরুত্ব দেয়নি৷ কিছুক্ষণ পরেই শিশুটা মারা যায়৷ আরও অভিযোগ, একই বেডে ছয় জনকে রাখার বিষয়টি তাঁরা আগেও বলেছিল৷ কিন্তু সেই সময়ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষটি নজর দেয়নি৷

জানা গিয়েছে, দেবযানীর দাসের এটি দ্বিতীয় সন্তান৷ এর আগে একটি বছর চারেকের পুত্র সন্তান আছে। তাঁর স্বামী সুমন দাস পেশায় ব্যবসায়ী। জলপাইগুড়ি মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাক্তার জগন্নাথ সরকার জানান, অভিযোগ অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে ক্ষতিয়ে দেখা হবে।