নয়াদিল্লি: একদিনের মধ্যেই পাকিস্তানকে উচিত জবাব দিল ভারত। পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি দিন কয়েক আগেই বলেছিলেন ভারত অধিকৃত জম্মু কাশ্মীরে ক্রমাগত মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হচ্ছে। শুক্রবার সেই প্রেক্ষিতেই কড়া জবাব দিল ভারত।

এদিন নয়াদিল্লির পক্ষ থেকে জানানো হয়, মানবাধিকার রক্ষা নিয়ে অন্তত পাকিস্তান যেন ভারতকে জ্ঞান বা শিক্ষা দিতে না আসে। পাক মাটিতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের যে হেনস্থা প্রতিদিন হয়, তার জবাব আগে দিক ইসলামাবাদ। এদিন ভারত বলে যে দেশ সন্ত্রাসবাদের উৎসমুখ, তাকে মানবাধিকার নিয়ে কথা বলা মানায় না। এদিন পাকিস্তানকে নার্সারি অফ টেররিজম বলে ব্যাখ্যা করেছে ভারত।

রাষ্ট্রসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে ভারতের ফার্স্ট সেক্রেটারি সেন্থিল কুমার বলেন পাকিস্তানে সংখ্যালঘুদের অকথ্য পরিস্থিতির মধ্যে থাকতে হয়। বিশেষ করে সংখ্যালঘু ধর্মগুলিকে অবর্ণনীয় অবস্থায় বাঁচতে হয় সেখানে। হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলের ৪৫তম সেশনে এক জবাবে এই বক্তব্য রাখেন সেন্থিল কুমার।

তিনি বলেন প্রাদেশিক হিংসা, গণহত্যা, ধর্মান্তরিত করা, পাক সেনার অত্যাচার সব সহ্য করতে হয় পাকিস্তানের সংখ্যালঘুদের। বিশেষত বালোচিস্তানের পরিস্থিতি ভয়াবহ বলে উল্লেখ করেন ভারতের ফার্স্ট সেক্রেটারি। এই বিষয়ে ভারত বেশ উদ্বিগ্ন বলেও জানান তিনি। পাক অধিকৃত কাশ্মীরে প্রকৃত কাশ্মীরি আজ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তাই এই পরিস্থিতি মাথায় রেখে কোনওভাবেই যেন ভারতের দিকে মানবাধিকার প্রসঙ্গে আঙ্গুল না তোলে পাকিস্তান, বলে কার্যত হুঁশিয়ারি দেয় ভারত। ভারতের দাবি কালচার অফ পিস নয়, পাকিস্তানে কালচার অফ ভায়োলেন্স প্রতিষ্ঠিত। প্রতিদিনই পাকিস্তানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষকে জোর করে ধর্মান্তরিত করা হচ্ছে বলেও এদিন ভারত জানায়।

ভারতের প্রতিনিধি জানান, প্রতিদিন সংখ্যালঘু সম্প্রদায় যেমন হিন্দু-শিখ ধর্মাবলম্বীদের মানবাধিকার লঙ্ঘন হয় পাকিস্তানে। মহিলা ও কন্যা সন্তানদের ধর্ষণ, পাচারের ঘটনা সেখানে নিত্যনৈমিত্তিক।এদিন ভারতের চড়া সুরে ফের রাষ্ট্রসংঘে কোণঠাসা পাকিস্তান। সন্ত্রাসবাদ প্রসঙ্গে সুর চড়িয়ে ভারত জানায় সন্ত্রাস ও হিংসার সংস্কৃতি অব্যাহত রেখেছে পাকিস্তান। জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদীদের আশ্রয় দেওয়া, জঙ্গি সংগঠগুলিকে নিরাপদ ছাদ দেওয়া বা মানবাধিকারক লঙ্ঘনের মতো ঘটনা পাকিস্তানে নতুন নয়।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।