কলকাতা: আসাদুদ্দিন ওয়াইসির দল এআইএমআইএম সম্পর্কে দলীয় কর্মীদের সতর্ক করলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার কোচবিহারের সভা থেকে তৃণমূলকর্মীদের এ ব্যাপারে বার্তা দেন মুখ্যমন্ত্রী। নাম না করে মমতা এ দিন বলেন, ওয়াইসির দল বিজেপির সঙ্গে ষড়যন্ত্র করে বাংলায় রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব তৈরি করতে চাইছে।

পড়ুন আরও- পশ্চিমবঙ্গের সংখ্যালঘু মুসলিমরা সব থেকে খারাপ সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে: মমতাকে বিঁধলেন ওয়াইসি

এদিন তিনি বলেন, হিন্দুদের মধ্যে যেমন একদল চরমপন্থী লোক রয়েছে, তেমনই সংখ্যালঘুদের মধ্যেও রয়েছে। ওয়াইসির নাম না নিয়ে মমতা বলেন, এমন একটি রাজনৈতিক দল আছে, যারা বিজেপির থেকে টাকা নেয়। তাঁরা এখানে থাকে না, হায়দরাবাদে থাকে বলেও উল্লেখ করেন মমতা। তিনি বলেন, তাঁরা এখানে এসে বলে আপনাদের নিরাপত্তা দেবে। কর্মী এবং সংখ্যালঘুদের সতর্ক করে তিনি এই ফাঁদে কাউকে পা দিতে বারণ করেন।

পড়ুন আরও- সরকারি কর্মচারীদের জন্যে বড় সিদ্ধান্ত, মিলবে ৫০০০ থেকে ২১ হাজার টাকা পর্যন্ত বাড়তি বেতন

এরপর কোচবিহারের মদন মোহন মন্দিরে প্রার্থনা করেন এবং পুজো দেন মমতা। সেখানে প্রথমে নিজের নাম ও গোত্রে পুজো দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর সকলকে চমকে দিয়ে মা-মাটি-মানুষ গোত্রেও আরেকটি পুজো দেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “আমি সবার জন্য পুজো দিই।” পাশাপাশি কোচবিহারের রাজবাড়ির মাঠে রাস মেলাতেও যান মমতা। উল্লেখ্য, এই প্রথমবার রাসের মেলাতে অংশ নিলেন তিনি। এ নিয়ে অবশ্য খোঁচা দিতে ছাড়েননি বিরোধীরা। বিরোধীদের কটাক্ষ, এই সবই ভোটবাক্সের রাজনীতি। যদিও বিরোধীদের কটাক্ষকে পাত্তা দিতে নারাজ তৃণমূল নেত্রী।

প্রসঙ্গত, এর আগে কোচবিহারে ওয়াইসির বিশাল পোস্টার পড়ে। এবং তাতে লেখা ছিল “অপেক্ষার অবসান, এবার মিশন পশ্চিমবঙ্গ।” রাজনৈতিক মহলের বক্তব্য, এর প্রেক্ষিতেই সুর চড়ালেন মমতা। ২০১৪ সালে লোকসভায় এই সিট জিতেছিল তৃণমূল কংগ্রেস কিন্তু ২০১৯-এর ভোটে ভারতীয় জনতা পার্টি কোচবিহারের দখল নেয়।