ওয়াশিংটন: উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সুস্থ হয়ে ফিরে আসাতে তিনি খুশি। শনিবার এমনটাই জানালেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি টুইটে জানিয়েছেন, ‘সে সুস্থ ভাবে ফিরে আসাতে আমি খুশি।’

গুরুতর অসুস্থ বা সম্ভবত মারা গেছেন এমন তীব্র জল্পনা শুরু হওয়ার প্রায় তিন সপ্তাহ বাদে প্রথম প্রকাশ্যে এলেন কিম জং উন। উত্তর কোরিয়ার স্টেট টেলভিশন দেখিয়েছে, পিয়ংইংয়ের উত্তরে সানচনে একটি সার কারখানা উদ্বোধনে এসে কিম হাঁটছেন, ব্যাপকভাবে হাসছেন এবং সিগারেট খাচ্ছেন।

১১ এপ্রিল ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরো বৈঠকের সভাপতিত্ব করার পর থেকে উত্তর কোরিয়ার নেতা আর প্রকাশ্যে আসেননি। এরপরেই তাঁকে ঘিরে জল্পনা ছড়ায়। রিপোর্টে দাবি করা হয়, মৃত্যু হয়েছে এই নেতার। কিন্তু এরপর একাধিক দেশের পক্ষ থেকে জানানো হয় সুস্থ রয়েছেন কিম জং। কিন্তু তবুও প্রকাশ্যে না আসায় তাঁকে ঘিরে সমগ্র পৃথিবীতে জল্পনা চলছিলই।

১৫ এপ্রিল রাষ্ট্র ক্ষমতায় কিম পরিবারের প্রতিষ্ঠাতা ও দাদা কিম ইল সানের জন্মবার্ষিকী অনুষ্ঠানে কিং জং উন উপস্থিত না থাকায় তাকে ঘিরে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে নানা জল্পনা তৈরি হতে থাকে। পশ্চিমী সংবাদমাধ্যমগুলি তাদের খবরে আবার এরইমধ্যে বেশ কয়েকবার কিমের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে। শুধু তাই নয়, ওইসব কোনও কোনও সংবাদমাধ্যম আবার পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে তার স্থলাভিষিক্ত কে হতে পারেন তারও ইঙ্গিতও দেয়।

এই ব্যাপারে কোনও কোনও সংবাদমাধ্যমের অভিমত ছিল, কিমের মৃত্যুর পর তার ছোট বোন কিম ইয়ো জং ওই পদে স্থলাভিষিক্ত হতে পারেন। তবে সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটাতে সিওল বারবার জানাচ্ছিল কিম জীবিত।

তবে অবশেষে জল্পনা শেষ ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে সুস্থই রয়েছেন কিম জং উন।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প