নয়াদিল্লি: দেশের প্রথম বাঙালি রাষ্ট্রপতির প্রয়াণে শোকপ্রকাশ করলেন মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পও। প্রণব মুখোপাধ্যায়কে ‘মহান নেতা’ বলে উল্লেখ করে শোকপ্রকাশ করেছেন বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

নিজের টুইটারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট লেখেন, ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির মৃত্যুর বিষয় জানতে পেরে আমি শোকাহত।” পাশাপাশি প্রণব মুখোপাধ্যায়কে ‘মহান নেতা’ বলে উল্লেখ করে দেশবাসী ও প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পরিবারকে সমবেদনা জানিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ট্রাম্পের এই টুইটের আগে মাইক পম্পেও এক বিবৃতিতে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে দুঃখ প্রকাশ করেন। তিনি জানান, প্রাক্তন ভারতীয় রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির দূরদর্শী নেতৃত্ব আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারতকে একত্রে আনার ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছিল।

উল্লেখ্য, সোমবার চিকিৎসকদের সবরকমের চেষ্টা সত্বেও সব কিছুকে ফাঁকি দিয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি। মৃত্যুকালে প্রণববাবুর বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। তাঁর করোনা রিপোর্টও ছিল পজিটিভ।

তাঁর মৃত্যুতে দেশ জুড়ে সাতদিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করা হয়েছে। ৩১ অগস্ট থেকে ৬ সেপ্টেম্বর শোক পালিত হবে। এই সাতদিন দেশের সব জায়গায় জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে। কোনও বিনোদন মূলক অনুষ্ঠান হবে না।

গত কয়েকদিন ধরেই হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। এরপর তাঁর একটি অস্ত্রোপচারও হয়। তারপর থেকেই শারীরিক অবস্থার ক্রমশ অবনতি হচ্ছিল তাঁর। প্রত্যেকদিন তাঁর স্বাস্থ্যের আপডেট দেওয়া হচ্ছিল হাসপাতালের তরফ থেকে। তাঁর এই প্রয়ান দেশের এক বড় ক্ষতি বলে মনে করছেন সকলে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।