লখনউ: দেশজুড়ে বেড়েই চলেছে নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। আর অন্যদিকে, মারণ এই ভাইরাসকে সাম্প্রদায়িক তকমা দিতে লাগাতার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন একশ্রেণির রাজনীতিবিদ। সেই তালিকায় এবার নবতম সংযোজন উত্তরপ্রদেশের দেওড়িয়ার বিজেপি বিধায়ক সুরেশ তিওয়ারি। মুসলিম সম্প্রদায়ের বিক্রেতাদের কাছ থেকে সবজি না কেনার নিদান এই বিজেপি বিধায়কের।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। সেই ভিডিওতে দেওড়িয়ার বিজেপি বিধায়ক সুরেশ তিওয়ারিকে বলতে শোনা যাচ্ছে, ‘একটা কথা শুনে নিন, আমি প্রকাশ্যে বলছি মুসলিমদের কাছ থেকে সবজি কিনবেন না।’ নোভেল করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে গোটা দেশকে একজোট হওয়ার বার্তা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবতও করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে জোটবদ্ধ হওয়ার বার্তা দিয়েছেন। মারণ এই ভাইরাসকে সাম্প্রদায়িক তকমা দেওয়ার চেষ্টা থেকে বিরত থাকতে আবেদন জানিয়েছেন রাষ্ট্রীয় স্বায়ংসেবক সংঘের প্রধান ভাগবত।

মোহন ভাগবতের সঙ্গে সহমত পোষণ করে একই আবেদন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। এমনকী দিন কয়েক আগে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডাও টুইটারে করোনাকে সাম্প্রদায়িক তকমা না দেওয়ার আবেদন জানিয়েছিলেন।

তবে আবেদনই সার। ভাগবত, মোদী, নাড্ডাদের সেই আবেদনে খোদ গেরুয়া শিবিরের একাংশই যে খুব একটা গুরুত্ব দেন না, তা উত্তরপ্রদেশের দেওড়ায়ার বিধায়ক সুরেশ তিওয়ারির মন্তব্য থেকে আরও একবার স্পষ্ট হল।

এদিকে, করোনাভাইরাসকে সাম্প্রদায়িক তকমা দেওয়া নিয়ে দেওড়িয়ার বিজেপি বিধায়ককে তুলোধনা করেছে সমাজবাদী পার্টি৷ উত্তরপ্রদেশের সমাজবাদী পার্টির মুখপাত্র তীব্র বিরোধিতা করেছেন সুরেশ তিওয়ারির মন্তব্যের৷ তাঁর অভিযোগ, গোটা দেশ যখন একজোট হয়ে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেমেছে, তখন করোনাকে সাম্প্রদায়িক ভাইরাসের তকমা দিয়ে বিভাজনের রাজনীতি করছে বিজেপি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।