প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: উত্তর ২৪ পরগনার বারাকপুরের তৃণমূল শ্রমিক সংগঠনের সভায় এসে কেন্দ্রীয় সরকারের তীব্র সমালোচনা করলেন আই এন টি টি ইউ সির সর্বভারতীয় সভানেত্রী তথা রাজ্যসভার তৃনমূল কংগ্রেস সাংসদ দোলা সেন। দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাগুলিকে কেন্দ্রের বিলগ্নিকরনের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে এদিন রাজ্যসভার সাংসদ দোলা সেন কেন্দ্রীয় সরকারকে তুলোধোনা করেন। একই সঙ্গে তিনি কেন্দ্রীয়মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদকে বিএসএনএল ইস্যুতে মিথ্যাবাদী বলে কটাক্ষ করেন ।

তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠন আইএনটিটিইউসির বারাকপুর মহকুমায় এক সভা আয়োজিত হল ব্যারাকপুর সুকান্ত সদন প্রেক্ষাগৃহে ।

সভায় উপস্থিত ছিলেন আই এন টি টি ইউ সির সর্ব ভারতীয় সভানেত্রী দোলা সেন, সংগঠনের উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সভাপতি তাপস দাসগুপ্ত ,ব্যারাকপুর পৌরসভার পৌরপ্রধান উত্তম দাস, টিটাগড় পৌরসভার পৌরপ্রধান প্রশান্ত চৌধুরী,খড়দহ পুরসভার উপ পৌরপ্রধান সুকন্ঠ বনিক, ব্যারাকপুরের ট্রেডইউনিয়ন নেতা লালন পাসোয়ান, রামকৃষ্ণ পাল সহ রাজ্য ও জেলা নেতৃত্ব ।

সভা শেষে দোলা সেন সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানান, “কেন্দ্রীয় সরকার ৪২ টি অর্ডিন্যান্স ফ্যাক্টরির মত রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাগুলিকে বিলগ্নিকরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইতিমধ্যে তা পাশও করে দেওয়া হয়েছে। তাঁর দাবি, দেশের নিরাপত্তার ক্ষেত্রে যা রাষ্ট্রের সম্পদ তাও বিলগ্নিকরণ করা হচ্ছে, খোলা বাজারে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। আর তা করতে দেওয়া যাবে না বলে হুঁশিয়ারি তাঁর। একই সঙ্গে দোলা সেন বলেন, আমাদের অনির্দিষ্টকালের জন্য আন্দোলন চলবে যতদিন না কেন্দ্র তার এই সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হটে। এটা ৩০৩ এর মাথা খারাপ হওয়ার ফল। ১৯৮৪ সালের ৪০৪ এর কংগ্রেস ১৯৮৯ সালে ক্ষমতায় আসেনি, আজ তারা ৪৪ । তাই ৩০৩ এর মোদী বাবু, অমিত বাবু ভূগোলটা ভুলে গিয়েছেন বলে মন্তব্য তৃণমূল নেত্রীর।

দোলা সেন বলেন, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সবার আগে সামনে দাঁড়িয়ে বাজেটের দিনই বিষয়টির প্রতিবাদ করেছেন । তারপর গান্ধী মূর্তির সামনে সংসদে আমরা সাংসদরা প্রতিবাদ করেছি । গত ৮ই জুলাই থেকে গেটে গেটে মিটিং, অবস্থান চলছে । মেয়ো রোডে আমরা অবস্থান করছি । বিএসএনএল কর্মীরা ৭ মাস মাইনে পায়না, এই নিয়ে মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদকে লিখিত প্রশ্ন করা হয়েছিল। তিনি মিথ্যা উত্তর দিয়েছেন । তিনি জানিয়েছেন, ডিসেম্বর নয় জুন পর্যন্ত নাকি মাইনে দেওয়া রয়েছে শ্রমিকদের । সেই লিখিত বিষয় নিয়ে আমি পিভিলেজ এনে, সেই বিষয় নিয়ে উপরাষ্ট্রপতি ভেঙ্কাইয়া নাইডু শোকজ করেছেন রবিশঙ্কর প্রসাদকে । আশা করব সংবিধানের শপথ নিয়ে যিনি সাংসদ হয়েছেন তিনি নিজের কথা সত্যি প্রমান করার জন্য জুন পর্যন্ত শ্রমিকদের বেতন দ্রুত মিটিয়ে দেবেন ।”