চেন্নাই: কুকুরও মানছে ট্রাফিক আইন। বাইকে বসা পোষ্য কুকুরের মাথায় চাপানো একটি হেলমেট, আর সেই ভাবেই চলছে বাইক। ইন্টারনেটে এমন একটি ভিডিওতে মজে রয়েছে নেট দুনিয়া। সত্যিই তো, জীবনের দাম কি ওদেরও কম? জানা গিয়েছে ট্রাফিক আইনের কথা মাথায় রেখেই এহেন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ওই পোষ্যের মালিক।

ভিডিওটি চেন্নাইয়ের ভিরুগাম্বাক্কাম এলাকার ভিডিও বলে জানা গিয়েছে। ভিডিওটিতে দেখা গিয়েছে পোষ্য কালো কুকুরটি নিজের মালিকের কাঁধে তাঁর সামনের পা দুটি রেখে পেছনে বসেছে, জিভ রয়েছে সামনে বের করা। একেবারে ঠিকঠাক ব্যালেন্স বজায় রেখে বসে আছে সে। যা দেখে হতবাক হয়ে গিয়েছেন নেটিজেনরা।

ভিডিওটি মঙ্গলবার অনলাইনে শেয়ার করা হয়। আর তারপর থেকে ৫৯ হাজার মানুষ ইতিমধ্যেই ওই ভিডিওটি দেখে ফেলেছেন। ভিডিওটি লাইক করেছেন প্রায় সাড়ে চার হাজার মানুষ। ভিউয়াররা অনেকেই উচ্ছ্বসিত ভাবে এই পদক্ষেপের প্রশংসা করেছেন। আবার অনেকে পোষ্যের কথা ভেবেও চিন্তিত। তাঁরা বলেছেন, এই রাইডিং বিপজ্জনক হতে পারে।

ব্যাপারটা মোটেই এমন নয় যে, এই প্রথম এই পোষ্যকে হেলমেট পড়ানোর ভিডিও ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়েছে। এর আগেও এমন ঘটনায় উচ্ছ্বসিত হয়েছিল নেট দুনিয়া। অক্টোবর মাসে দিল্লিতে এক ব্যক্তি তাঁর পোষা শুয়োর ছানাকে একই ভাবে বাইকের পিছনে বসিয়ে নিয়ে রাস্তায় বেড়িয়েছিলেন। আর সেই ভিডিও একই ভাবে ভাইরাল হয়েছিল ইন্টারনেটে। এছাড়াও ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়েছিল একটি বিড়ালের বাইক রাইডিং-এর ছবি, যা রীতিমতো ছড়িয়ে পড়েছিল ইন্টারনেটে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।