লখনউ: অত্যন্ত প্রভু ভক্ত প্রাণী হচ্ছে কুকুর। খুব সহজে তারা পোষ মেনে যায়। একই সঙ্গে মনিবের ভালোমন্দ খেয়াল রাখতে কুকুরের জুরি নেই।

আরও পড়ুন- প্রচারে বেরিয়ে মাজারে চাদর চড়ালেন বিজেপি প্রার্থী আলুওয়ালিয়া

এই বিষয়গুলি ছোটবেলায় রচনা বইতে সকলেই কমবেশি পড়েছে। কুকুরের সাহায্যে অনেক দূরহ কাজ সমাধান করতে দেখা গিয়েছে পুলিশকে। সিনেমায় অনেক মনিবের জন্য প্রাণ ত্যাগ করতেও দেখা গিয়েছে এই চতুষ্পদ প্রাণীকে।

আরও পড়ুন- কংগ্রেস প্রার্থী লক্ষ্মণ শেঠের গাড়িতে হামলায় অভিযুক্ত তৃণমূল

এই এওকম অনেক উদাহরণ আছে যা বলে শেষ করা যাবে না। বাস্তবের মাটিতে সেই তালিকায় যুক্ত হল আরও একটি ঘটনা। ৩০ জনেরও বেশি মানুষের প্রাণ বাঁচিয়ে নিজে মৃতু্য বরণ করে নিল এক কুকুর। পোষা কুকুরের গলার আওয়াজেই পড়ান বাঁচাতে সক্ষম হলেন এত জন মানুষ।

আরও পড়ুন- সমস্ত বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাবিতে জলপাইগুড়িতে বিক্ষোভ বিজেপির

ঘটনাটি উত্তর প্রদেশের বান্দা জেলার বান্দা শহরের। বুন্দেলখন্ড রেজিওয়ানের ওই শহরের একটি আবাসনে শুক্রবার আগুন লাগে। আগুন লাগার সময়ে বিষয়টি কারো নজরে আসেনি। কিন্তু পোষা কুকুরটি তা দেখেছিল। বিপদ বুঝতে পেরেই সে চিৎকার করতে শুরু করে দেয়। যার ফলে আবাসনের মধ্যে থাকা সকলে জানতে পারে যে আগুন লেগেছে। এবং সকলে আবাসনের বাইরে চলে যায়।

আরও পড়ুন- তৃণমূলে যোগ দিয়েই বিজেপির বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ প্রাক্তন নেতার

সকল বাসিন্দা আবাসনের বাইরে বেরোতে সক্ষম হলেও কুকুরটি কিন্তু তা পারেনি। সেই কারণে আর প্রাণ বাঁচানোও সম্ভব হয়নি তার পক্ষে। এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেছেন, “আগুন লাগতেই কুকুরটা চেঁচাতে শুরু করে। তখন আমরা বিপদের কথা বুঝতে পেরে পালিয়ে যায়। কিন্তু কুকুরটা পারেনি। একটা সিলিন্ডার ব্লাস্ট করাল আর ও মরে গেল।”