নয়াদিল্লি: একবার করোনামুক্ত হলেও ফের অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন অনেকে। এখনও পর্যন্ত পাঁচ শতাংশ করোনা রোগী ফের হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। রাজধানী দিল্লি-সহ একাধিক রাজ্যে একবার করোনা থেকে আরোগ্য লাভ করার পরেও বেশ কয়েকজন রোগী শারীরিক অসুস্থতার দরুণ ফের হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

সংবাদসংস্থা দ্য প্রিন্টের খবর অনুযায়ী, দিল্লির চিকিৎসকদের একাংশ জানিয়েছেন, করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে বাড়ি চলে যাওয়ার পরেও বেশ কিছু রোগী ফের অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি। এখনও পর্যন্ত পাঁচ শতাংশ করোনা রোগীর ক্ষেত্রে নতুন করে অসুস্থ হয়ে পড়ার এই প্রবণতা দেখা গিয়েছে। চিকিৎসকদের একাংশ করোনমুক্তির পরেও ফের অসুস্থ হওয়ার ঘটনাকে উদ্বেগজনক বলে মন্তব্য করেছেন।

করোনামুক্ত হয়ে বাড়ি ফেরার দু’-তিন সপ্তাহ পরেও অনেকে নতুন করে অসুস্থ হচ্ছেন। অনেকেরই জ্বর, শরীরের বিভিন্ন অংশে ব্যথা, খিদে কমে যাওয়ার মতো উপসর্গ দেখা দিচ্ছে। সময় নষ্ট না করে সেই সব রোগীদের দ্রুত ফের হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা।

করোনাকে জয় করে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও মঙ্গলবার ফের ভর্তি হয়েছেন হাসপাতালে। জানা যাচ্ছে, মঙ্গলবার রাতে অমিত শাহকে দিল্লির এইমস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আপাতত তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

চিকিৎসক রণদীপ গুলেরিয়ার তত্ত্বাবধানে একটি দল তাঁর দেখাশোনার দায়িত্বে রয়েছে। প্রতি মুহূর্তে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর স্বাস্থ্যের প্রতি নজর রাখছেন চিকিৎসকরা। এইমস-এর প্রেস বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, গত তিন-চার দিন ধরে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শরীরে ব্যথা এবং ক্লান্তি অনুভব করছিলেন।

যদিও করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পরেই আগে তাঁকে হাসপাতাল থেকে ছড়া হয়েছিল। করোনামুক্ত হওয়ার পরে পরবর্তী চিকিৎসার জন্যই তাঁকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। তিনি সুস্থ রয়েছেন ও হাসপাতাল থেকেই নিজের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।