পালানপুর: নাবালিকাকে ধর্ষণ৷ একদিন, দু’দিন নয়৷ দীর্ঘ দু’বছর ধরে৷ কখনও বাবা, কখনও ছেলে৷ সুযোগ পেলেই বছর ১৬-র ওই কিশোরীর যৌন নির্যাতন চালাত৷

আর নিজেদের অপরাধ ঢাকার জন্য কিশোরীকে নিয়মিত ব্ল্যাকমেল করা হত৷ সেই ব্ল্যাকমেলের হাতিয়ার ছিল কিছু ভিডিও ক্লিপিংস ও ছবি৷ যা সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখানো হয়েছে বারবার৷

আরও পড়ুন: ‘গ্রামবাসীদের ওপর পুলিশি অত্যাচার বন্ধ হোক’, দান্তেওয়াড়ায় মাও হুঙ্কার

গত রবিবার গুজরাতের হিম্মতনগর বি ডিভিশন থানার দ্বারস্থ হয় ওই কিশোরী৷ স্থানীয় চিকিৎসক সিকন্দর রাঠোর ও তার ছেলে পারভেজ রাঠোরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করে৷

তার দাবি, ওই চিকিৎসক পিতা-পুত্রের ক্লিনিকে সে কাজ করত৷ ২০১৬ সালের মে মাসে প্রথমবার সে ধর্ষিতা হয়৷ প্রথমে বাবা৷ তার পর ছেলেও তাকে ধর্ষণ করে৷ সেই সব ভিডিও তুলে রাখা হয়৷ তার কিছু নগ্ন ছবিও তুলে রাখে সিকান্দর-পারভেজ৷

আরও পড়ুন: ফের চুরি’র ঘটনা দূরপাল্লা’র ট্রেনে

নির্যাতিতার অভিযোগ, সেই সব ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখানো হত৷ আর সেই ভয়ের সুযোগ নিয়ে কখনও সিকান্দর, কখনও পারভেজের লালসার শিকার হতে তাকে৷

মেয়েটির দাবি, অত্যাচারের মাত্রা ক্রমশ বাড়তে থাকে৷ বাবা-ছেলের পর দুই কম্পাউন্ডারের হাতেও নির্যাতিতা হতে হয় তাকে৷ আব্দুল সাত্তার বেলিম ও ইয়াসিন পাঠান নামে ওই দুই কম্পাউন্ডার তাকে প্রায় শ্লীলতাহানি করত বলে মেয়েটি পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছে৷

আরও পড়ুন: প্রথম ছবিতেই লিপলক, ভাইরাল সইফ-কন্যার কেদারনাথ টিজার

পুলিশ চারজনের বিরুদ্ধেই মামলা রুজু করেছে৷ প্রত্যেকের বিরুদ্ধে পকসো আইন ও আইটি অ্যাক্টে দেওয়া হয়েছে৷ পুলিশ তদন্ত করছে৷ এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি৷