কলকাতা: করোনা আক্রান্ত চিকিৎসকের মৃত্যু,বেসরকারি হাসপাতাল পরিবারের হাতে বিল ধরাল প্রায় ১৯ লাখ টাকার৷ সেই বিল রিভিউ করার নির্দেশ দিল রাজ্য স্বাস্থ্য কমিশন৷

জানা গিয়েছে, করোনা আক্রান্ত হয়ে বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন চিকিৎসক প্রদীপ ভট্টাচার্য৷ যদিও শেষ পর্যন্ত করোনার কাছে তিনি হার মানলেন৷ তারপর ওই বেসরকারি হাসপতাল পরিবারের হাতে চিকিৎসা ও অন্যান্য খরচের বিল ধরাল প্রায় ১৯ লাখ টাকার৷ বিষয়টি রাজ্য স্বাস্থ্য কমিশনের নজরে আসতেই ওই বিল রিভিউ করার নির্দেশ দেয়৷ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কমিশনকে জানিয়েছে, তাঁরা বিলটি রিভিউ করছেন এবং যথাযথ ব্যবস্থাও নেবেন৷

স্বাস্থ্য কমিশন সূত্রে খবর, বুধবার ওই বেসরকারি হাসপাতালে কমিশন টেক্সট মেসেজ করেন৷ সেখানে হাসপাতালকে করোনা আক্রান্ত মৃত চিকিৎসকের আকাশছোঁয়া বিল ফের রিভিউ করে দেখার কথা বলা হয়৷ এমন স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে বিল পুনরায় বিবেচনা করে কমানোর নির্দেশ রাজ্য স্বাস্থ্য কমিশনে এই প্রথম৷

উত্তর ২৪ পরগনার শ্যামনগরের বাসিন্দা তথা জনপ্রিয় চিকিৎসক প্রদীপ ভট্টাচার্য৷ করোনা আক্রান্ত হয়ে তিন চিকিৎসাধীন ছিলেন একটি বেসরকারি হাসপাতালে৷ গত সোমবার দুপুরে ওই হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়৷ অভিযোগ,তার পরই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মৃত চিকিৎসকের পরিবারের হাতে প্রায় ১৯ লাখ টাকার বিল ধরান৷ বিশাল অঙ্কের এই বিল নিয়ে সরব হয় একাধিক চিকিৎসক সংগঠন এবং চিকিৎসকদের একটা বড় অংশ৷ বিষয়টি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতেও তোলপাড় হয়৷ নজরে আসে রাজ্যের স্বাস্থ্য কমিশনেরও।

বুধবার কমিশনের চেয়ারম্যান প্রাক্তন বিচারপতি অসীম কুমার বন্দোপাধ্যায় বলেন, “সোশ্যাল মিডিয়া থেকেই প্রথম বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। চিকিৎসক প্রদীপ ভট্টাচার্য অত্যন্ত জনপ্রিয় চিকিৎসক ছিলেন৷ তার বিলটি রিভিউ করতে বলেছি৷ রিভিউতে যদি কিছুটা কম করা যায়, তাহলে সেই টাকা যেন বাড়ির লোককে ফেরৎ দেওয়া হয়৷

বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রাজ্যের স্বাস্থ্য কমিশনকে জানিয়েছে, যে তাঁরা বিলটি রিভিউ করছেন এবং যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও