প্রতীকী ছবি

বাসুদেব ঘোষ, সিউড়ি : গ্রামের সবচেয়ে প্রবীণ তিনি৷ দুপাশে বয়ে চলা ময়ূরাক্ষী নদী সাক্ষী তাঁর বয়সের৷ নদীর ঠিক পশ্চিম দিকে দুমুনিগ্রাম৷ সেই গ্রামেই থাকেন ১১০ বছরের বৃদ্ধা লক্ষ্মী টুডু৷

জরাজীর্ণ শরীর নিয়ে কোনও রকমে বেঁচে রয়েছেন তিনি৷ তাঁর আদি বাড়ি ছিল সিউড়ি খোশবাসপুরে৷ বিয়ের পর থেকে কেটে গিয়েছে ১০০টা বছর৷ গত দেড় বছর ধরে তার পেনশন বন্ধ হয়ে যাওয়ায়, বেশ অসুবিধার মধ্যে পড়েছেন এই শতায়ু বৃদ্ধা৷ দেড় বছর আগে পর্যন্ত তিনি পেনশন পেতেন, ৯০০ টাকা মত৷

কিন্তু নাতি লখু টুডু তাঁর রেশন কার্ড, আধার কার্ড সমেত যাবতীয় কাগজপত্র নিয়ে উধাও হয়ে যায়৷ তার পর থেকেই অসহায় অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন লক্ষ্মী টুডু৷ তার এই দুর্দশার কথা খবর পেয়ে পাশে দাঁড়ায় প্রশাসন৷

জেলাশাসক মৌমিতা গোদারা বসুর নির্দেশে বৃদ্ধার কাছে পৌঁছে যায় ১০ কেজি চাল, আটা সমেত রেশন সামগ্রী৷ কিন্তু সেই রেশন সোমবার ফের নাতি লখু টুডু কেড়ে নিয়ে চম্পট দেয়৷ যদিও সাহায্যের চাল ছিনতাই হওয়ার খবর পেয়ে মহম্মদ বাজারের বিডিও মঙ্গলবার ফের রেশন সামগ্রী বৃদ্ধার কাছে পাঠিয়ে দেন৷

জেলাশাসক জানান, এবার থেকে প্রতি মাসে বৃদ্ধার হাতে রেশন তুলে দিয়ে আসা হবে৷ এবার থেকে তাকে যাতে কেউ বিরক্ত না করে সেটাও দেখা হবে৷ মহম্মদ বাজারের বিডিও জানান বৃদ্ধার পেনশনের বিষয়টিও দেখা হবে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।