স্টাফ রিপোর্টার: লোকসভা ভোটের দিন ঘোষণার আগে থেকেই জেলায় জেলায় প্রস্তুতি পর্ব শুরু হয়ে গিয়েছিল৷ দিন ঘোষণার পর থেকেই সেই প্রস্তুতি জোরকদমে শুরু হয়েছে৷ লোকসভা নির্বাচন ঘোষণা হয়ে যাওয়ায় এখন রাজ্যে তথা জেলার সর্বত্রই নির্বাচনী আচরণবিধি লাগু হয়ে গিয়েছে৷ জেলায় জেলায় ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে জেলাশাসকদের সাংবাদিক বৈঠক৷ প্রতিটি জেলায় এই বছর যে কোন রাজনৈতিক দলের প্রার্থী সর্বাধিক ৭০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত প্রচারের জন্য খরচ করতে পারবেন।

উত্তর ২৪ পরগণা জেলার আসন্ন লোকসভা নির্বাচন নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করলেন জেলা শাসক অন্তরা আচার্য। সেখানে তিনি বলেন, ‘আমরা প্রশাসনিক স্তরে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। প্রতি প্রার্থী ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত নগদে খরচ করতে পারবে৷ ১০ হাজারের বেশি খরচ করতে গেলে প্রার্থীকে ব্যাংকের চেক অথবা ইলেকট্রনিক পদ্ধতির মাধ্যমে খরচ করতে হবে। উত্তর ২৪ পরগণা জেলার পাঁচটি আসনে নির্বচন অনুষ্ঠিত হবে। এই আসনগুলি হল বারাকপুর, বারাসত, দমদম, বনগাঁ এবং বসিরহাট। উত্তর ২৪ পরগণায় দুই দফায় ভোট হবে। ৬ মে বারাকপুর এবং বনগাঁ কেন্দ্রের ভোট, ১৯ মে দমদম, বারাসত ও বসিরহাট কেন্দ্রের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।’

অন্যদিকে আনুষ্ঠানিকভাবে পূর্ব বর্ধমানেও জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব জেলার দুই লোকসভা আসনের বিষয়ে সাংবাদিক বৈঠকও করেছেন। এদিনই জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সরকারি দেওয়াল বা বাড়িতে লাগানো সরকারি বিভিন্ন প্রকল্পের প্রচার সহ বিভিন্ন প্রচার সংক্রান্ত ফেস্টুন, ব্যানার, হোর্ডিং সরিয়ে ফেলার কাজ শুরু হয়েছে। পূর্ব বর্ধমান জেলায় চতুর্থ দফায় দুটি লোকসভা আসন৷ বর্ধমান-দুর্গাপুর এবং বর্ধমান পূর্ব আসনে ভোট অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৯ এপ্রিল। পূর্ব বর্ধমান জেলায় মোট ভোটার রয়েছেন ৩৮ লক্ষ ৮৪ হাজার ২জন। এবারের ভোটে থাকছেন ৩৭৬জন মহিলা কর্মী। মোট ৭৮টি মহিলা দ্বারা পরিচালিত বুথ থাকবে।

এর মধ্যে সদর উত্তর মহকুমায় ২৯টি, সদর দক্ষিণ মহকুমায় ১০টি, কালনায় ১৫টি এবং কাটোয়ায় ২৪টি বুথ থাকছে। এবারের লোকসভা নির্বাচনে জেলায় ২১হাজার ৭৮৫ জন ভোট কর্মীকে নিয়োজিত করা হচ্ছে। যেহেতু সমস্ত বুথেই ভিভিপ্যাট এবং ইভিএম মেশিনেই ভোট গ্রহণ হবে তাই অন্যান্যবারের থেকে এবার ভোটকর্মীদের তিন দিন প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

অপরদিকে বোলপুর লোকসভা আসনের তিনটি বিধানসভা এবং বিষ্ণুপুর লোকসভা আসনের মধ্যে একটি আসন রয়েছে এই জেলার মধ্যে। বোলপুর লোকসভা আসনের মধ্যে কেতুগ্রাম, মঙ্গলকোট এবং আউশগ্রাম বিধানসভা এবং বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর লোকসভা আসনের মধ্যে খণ্ডঘোষ রয়েছে এই জেলার মধ্যে। গলসী বিধানসভার অধীনে থাকা ৮২টি বুথ পশ্চিম বর্ধমানের দিকে পড়েছে। বর্ধমান দুর্গাপুর লোকসভা আসনের মধ্যে রয়েছে বর্ধমান দক্ষিণ, বর্ধমান উত্তর, মন্তেশ্বর, ভাতার এবং গলসী বিধানসভা।

এই লোকসভা কেন্দ্রের মোট ভোটার রয়েছেন ১২ লক্ষ ২৯ হাজার ৩৫৭জন। ভোটারের মধ্যে ৬ লক্ষ ২২ হাজার ৪৫৯ জন পুরুষ ভোটার, ৬ লক্ষ ৬ হাজার ৮৮০ জন মহিলা ভোটার এবং ১৮জন তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার। পূর্ব বর্ধমান লোকসভা আসনের মধ্যে রয়েছে রায়না, জামালপুর, কালনা, মেমারী, উত্তর ও দক্ষিণ পূর্বস্থলী এবং কাটোয়া বিধানসভা। মোট ভোটার এখানে ১৬ লক্ষ ৯৪ হাজার ৫৯০ জন। তার মধ্যে ৮ লক্ষ ৬৮ হাজার ১৮ জন পুরুষ ভোটার, ৮ লক্ষ ২৬ হাজার ৫২৪জন মহিলা ভোটার এবং ৪৮ জন তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার।

আগামী ১৮ এপ্রিল জলপাইগুড়িতে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে লোকসভা নির্বাচন। জেলার মোট সংখ্যা ১৭ লক্ষ ২৯ হাজার ৮২৯ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮৮৪৫৬৫জন, মহিলা ভোটার ৮৪৫২৪৫ জন। বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন ভোটার ৯২৫৪ জন। যাদের সঠিক সংখ্যা তৈরির কাজ এখনও চলছে।

সাংবাদিক বৈঠকে জেলাশাসক শিল্পা গৌরিসারিয়া জানান, ভোট গ্রহণ কেন্দ্রে এবার থেকে থাকছে পানীয় জল, শৌচাগার, সহায়তা কেন্দ্র এবং হুইল চেয়ার। জেলায় মোট বুথের সংখ্যা ১৯৪১টি৷ যার মধ্যে জলপাইগুড়ি লোকসভায় মোট ভোট গ্রহণ কেন্দ্র ১৮৬৮ টি৷ কোচবিহার জেলায় ১৬৩৩ টি এবং মেখলিগঞ্জ বিধানসভার ২৩৫টি। জেলায় শহরের ভোট গ্রহণ কেন্দ্র ৩৩৬টি, গ্রামের কেন্দ্র ১৬০৫।

৩ নং জলপাইগুড়ি লোকসভা কেন্দ্রের ভোটের জন্য গেজেট নোটিফিকেশন বের হবে ১৯ মার্চ৷ মনোনয়ন জমা করার শেষ দিন ২৬ মার্চ, স্ক্রুটিনি ২৭ মার্চ, ২৯ মার্চ মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। ভোট দিতে প্রয়োজন ভোটার এপিক অথবা প্যান কার্ড, আধার কার্ড, পাসপোর্ট, পাশবই সহ ১১ টি কাগজের মধ্যে যে কোনও একটি। সাধারণ মানুষ থেকে রাজনৈতিক দল অ্যাপ অথবা টোল ফি নম্বরেও অভিযোগ জানাতে পারবেন।