মেলবোর্ন: রড লেভার এরিনায় বৃহস্পতিবার গ্রীক উত্থান স্তব্ধ করে ফাইনালে পৌঁছেছিলেন দ্বিতীয় বাছাই নাদাল। আর শুক্রবার মেলবোর্ন পার্ক দেখল জোকার ঝড়। আর সেই ঝড়ে কার্যত খড়কুটোর উড়ে গেলেন বছর চব্বিশের লুকাস পৌয়িলি। সেমিফাইনালে ফরাসি প্রতিদ্বন্দ্বীকে স্ট্রেট সেটে হারিয়ে বছরের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনালে রাফায়েল নাদালের মুখোমুখি বিশ্বের একনম্বর নোভাক জকোভিচ।

আরও পড়ুন: ‘বাস্কিং দ্য সান’ নিয়ে কোহলিকে লেগ পুল পিটারসনের

ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করার পথে সার্বিয়ান টেনিস তারকার পক্ষে এদিন ম্যচের ফল ৬-০, ৬-২, ৬-২। শেষবার কোনও গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনাল বলতে ২০১২ অস্ট্রেলিয়ান ওপেন দেখেছিল এই দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর ৫ ঘন্টা ৫৩ মিনিটের নাছোড় লড়াই। রবিবাসরীয় রড লেভার এরিনা প্রহর গুনছে তেমনই কিছু চাক্ষুষ করার। তার আগে শুক্রবার ফরাসি প্রতিদ্বন্দ্বীকে দাঁড়াতেই দিলেন না বিশ্বের এক নম্বর। ১ ঘন্টা ২৫ মিনিটের একপেশে লড়াইয়ে শেষ চারের যুদ্ধের যবনিকা টানেন জোকার।

আরও পড়ুন: ক্যারিবিয়ানে লজ্জার ইনিংস ইংরেজদের

প্রথম সেটে পৌয়িলিকে এদিন খাতা খোলার সুযোগ দেননি সার্বিয়ান তারকা। প্রথম সেমিফাইনালে রাফার মতই এদিন কোর্টে বিধ্বংসী দেখাল জকোভিচকে। পয়লা নম্বরের বিধ্বংসী অথচ সুন্দর টেনিসের কাছে কোনও প্রত্যুত্তর ছিল না প্রথমবার সেমিতে পৌঁছনো পৌয়িলির। প্রথম সেট ৬-০ ব্যবধানে হারানোর পর দ্বিতীয় সেটেও বিশেষ লড়াই ছুঁড়ে দিতে পারেননি ফরাসি প্রতিদ্বন্দ্বী। দাপটের সাথেই ৬-২ ব্যবধানে দ্বিতীয় সেট দখল করে নেন নোভাক।

আরও পড়ুন: প্রথম ম্যাচ জিতে নীলনির্জনে ‘মেন ইন ব্লু’

তৃতীয় সেটেও একই প্রতিচ্ছবি। দ্বিতীয় সেটের মত তৃতীয় সেটও একই ব্যবধানে জিতে নেন ১৪টি গ্র্যান্ডস্লামের মালিক। অর্থাৎ স্ট্রেট সেটে প্রতিদ্বন্দ্বীকে ধরাশায়ী করে গতবছর উইম্বলডনের পর ফের রড লেভার এরিনা সাক্ষী থাকতে যাচ্ছে টেনিসের অন্যতম সেরা লড়াইয়ের। সহজেই সেমিফাইনাল জয়ের পর ফাইনালে স্প্যানিশ প্রতিদ্বন্দ্বী রাফায়েল নাদালকে প্রশংসায় ভরিয়ে দিলেন জোকার। ১৭টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিককে নিয়ে ৬ বারের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জয়ী তারকা জানান, ‘প্রতিপক্ষ হিসেবে আমার দেখা কোর্টে সবচেয়ে আক্রমণাত্মক নাদাল।’