নিউ ইয়র্ক: ডেনিস কুদলাকে হারিয়ে শেষ ষোলোয় পা দেওয়ার আগে এক সমর্থকের সঙ্গে তাঁর বাগ-বিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ার ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই ঘটনার রেশ ধরে কিনা জানা নেই, তবে আচমকাই রবিবার আর্থার অ্যাশ স্টেডিয়ামে সার্বিয়ান টেনিস তারকা নোভাক জকোভিচকে উদ্দেশ্য করে ভেসে এল টিটকিরি। এর কিছুক্ষণ আগেই সুইজারল্যান্ডের প্রতিদ্বন্দ্বী স্ট্যান ওয়ারিঙ্কার বিরুদ্ধে কাঁধের চোটের কারণে ম্যাচ ছাড়তে বাধ্য হন ‘জোকার’। সবমিলিয়ে রবিবারের দিনটি খুব শীঘ্রই ভুলতে চাইবেন যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন।

২০১৬ ফ্লাশিং মেডো চ্যাম্পিয়ন ওয়ারিঙ্কার বিরুদ্ধে এদিন তৃতীয় সেট চলাকালীন ম্যাচ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন টুর্নামেন্টে তিনবারের চ্যাম্পিয়ন। যদিও শুরু থেকে সুইস প্রতিদ্বন্দ্বীর বিরুদ্ধে এদিন একেবারেই প্রত্যাশিত ছন্দে ছিলেন না জোকার। প্রথম সেটে ৬-৪ এবং দ্বিতীয় সেটে ৭-৫ ব্যবধানে জকোভিচকে পরাস্ত করে ভালোই এগোচ্ছিলেন ওয়ারিঙ্কা। এমনকি তৃতীয় সেটেও জকোভিচ ম্যাচ ছাড়ার আগে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে যান সুইস তারকা।

হাঁটুর চোট সারিয়ে কোর্টে ফেরার পর থেকে স্বপ্নের ফর্মেই বিরাজ করছিলেন সার্বিয়ান জকোভিচ। চলতি বছর অস্ট্রেলিয়ান ওপেন ও উইম্বলডনেও নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করেছেন বিশ্বের এক নম্বর। তবে যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের শেষ ষোলোর ম্যাচে এদিন শুরু থেকেই সার্ভিসে কিছুটা নড়বড়ে দেখায় জোকারকে। আর সেই সুযোগেই ম্যাচে জাঁকিয়ে বসেন ওয়ারিঙ্কা। প্রথম দু’সেট জিতে ম্যাচে বড়সড় লিডও নিয়ে নেন। এরপর উল্লেখযোগ্যভাবে তৃতীয় সেট চলাকালীন ম্যাচ ছাড়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন ১৬টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিক। জকোভিচ ম্যাচ ছাড়ায় স্বাভাবিকভাবেই শেষ আটে জায়গা পাকা করে নেন ওয়ারিঙ্কা। একইসঙ্গে জোকারের খেতাব ধরে রাখার লড়াই থমকে যায় চতুর্থ রাউন্ডেই।অ্যা

এরপর কিটব্যাগ গুছিয়ে কোর্ট ছাড়ার সময় একদল সমর্থকের টিটকিরি শুনতে হয় সার্বিয়ান তারকাকে। যা একেবারেই ভালোচোখে দেখছে না টেনিসদুনিয়া। নোভাকের ম্যাচ ছাড়ার ঘটনায় হতাশ ওয়ারিঙ্কাও। ম্যাচের পর তিনি জানান, ‘এভাবে ম্যাচ জিততে কেউই চায় না। নোভাকের জন্য আমি দুঃখিত।’ কোয়ার্টারের লড়াইয়ে ড্যানিল মেদভেদেভের মুখোমুখি হবেন ওয়ারিঙ্কা।

অন্যদিকে বেলজিয়ান ডেভিড গফিনকে হারিয়ে ফ্লাশিং মেডোর শেষ আটে পৌঁছে গেলেন রজার ফেডেরার। শেষ ষোলোয় ফেডেক্সের সংহার মূর্তির সামনে রবিবার কার্যত খড়কুটোর মত উড়ে যান গফিন। মাত্র ৭৯ মিনিটের লড়াইয়ে ৬-২, ৬-২, ৬-০ ব্যবধানে জিতে বাজিমাত করেন ফেডেরার। ম্যাচ জয়ের সুইস কিংবদন্তি জানান, ‘ডেভিডের কাছ থেকে অনেক প্রত্যাশা ছিল। ও তার ধারেকাছে আজ পৌঁছতে পারেনি।’