মুম্বই: নভেম্বরের ২৮ তারিখ থেকে শুরু হতে চলেছে মধ্যপ্রদেশের নির্বাচন৷ তোড়জোড় চলছে প্রস্তুতি৷

রাজনীতিবিদদের পাশপাশি অভিনেত্রী দিব্যাঙ্কা ত্রিপাঠিও যোগদান করলেন নির্বাচনে৷ ভোপালের মেয়ে দিব্যাঙ্কা৷ তাই সেখানকার মানুষদের ভোট দেওয়ার জন্য উৎসাহ যোগাচ্ছেন তিনি৷

 

তাঁর ছবিসহ কয়েকটি হোর্ডিময়ের ছবি শেয়ার করেছেন নিজের সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে৷ ক্যাপশনে লিখেছেন, “আগের স্লোগান ছিল, ইংরেজ ভারত ছাড়ো৷ বর্তমানের স্লোগান, নাগরিক আলস্য ত্যাগ করো৷ সংকল্প করো, ভোট করো৷”

দিব্যাঙ্কার এই কাজে অনেকেই খুশি হয়েছেন৷ নির্বাচনে তাঁর উৎসাহ দেখে ফ্যানেরা তাঁর প্রশংসাও করেছে৷ ভোপালের একটি বিউটি কনটেস্ট থেকেই অভিনয় জগতে পাড়ি দিয়েছিলেন দিব্যাঙ্কা৷ সাধারণ পরিবারের একটি মেয়ের আকাশছোঁয়া স্বপ্ন৷

বহু সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, তাঁর অভিনয় জগতে কোনও উৎসাহ ছিল না৷ ছোট থেকে টমবয়েইশ ছিলেন তিনি৷ কলেজের পর একটু আদটু সাজগোজ করা শিখেছিলেন৷ বন্ধুবান্ধবরা জোড় করে একটি বিউটি প্যাজেন্টে নাম নিথভুক্ত করিয়ে দিয়েছিল তাঁর৷ সেই পথচলা শুরু হয়ে আজ তিনি টেলিভিশনের প্রিয় বউমা৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.