প্রদ্যুত দাস, জলপাইগুড়ি: মহিলাদের উপর অত্যাচারের আঁকা ছবির মাধ্যমে সচেতনতা চালিয়ে প্রতিবাদ জানালো উত্তরপূর্ব ভারতের একদল চিত্রশিল্পী। উত্তরপূর্ব ভারতের একদল নবীন চিত্রশিল্পীর অপূর্ব মধুবনি আর্টের মাধ্যমে কন্যাভ্রুণ হত্যা সহ নারীদের উপর অত্যাচারের বিরুদ্ধে ছবি একে রাঙিয়ে তুললো জলপাইগুড়ি রোড স্টেশনকে। সেই সৌন্দর্যায়ন প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করলেন উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের ডিভিশনাল ম্যানেজার চন্দ্রবীর রমন।

এই স্টেশনেই প্রথম প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ‘বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও’ কর্মসূচির প্রচারের কাজ রঙ তুলির মধ্য দিয়ে ফুটিয়ে তুলেছেন শিল্পীরা। দৃষ্টিনন্দন এই ছবি আঁকার কাজে এদিন হাত লাগান ডিভিশনাল ম্যানেজার চন্দ্রবীর রমন। তিনি জানান, ‘বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও’ কর্মসূচির প্রচারের সঙ্গে নারী ও শিশু পাচার রোধ করতেও সচেতনতা বাড়াতেই এই ছবি আঁকার কাজ। জলপাইগুড়ি রোড স্টেশনে বেস্ট ফিডিং রুমও দ্রুত চালু করা হবে। একই সঙ্গে যাত্রী পরিষেবার মানোন্নয়নের বিষয়েও রেল উদ্যোগী হয়েছে।

 

চন্দ্রবীর রমন বলেন, ‘‘এই ধরনের ছবি আঁকার কাজ করতে পেরে খুব ভালো লাগছে। ২৬ জন শিল্পী এই কাজ করছে। ২১ ডিসেম্বর জলপাইগুড়ি রোড স্টেশনে সৌন্দর্যায়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের জেনারেল ম্যানেজার সঞ্জীব রায়। এই স্টেশনে পদাতিক এক্সপ্রেস ট্রেনের স্টপেজ সহ দূরপাল্লার ট্রেনের স্টপেজ চালু করার বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রয়োজনীয় আর্জি জানানো হয়েছে বলে জানান তিনি।’’