ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: একদিনের তফাতে পঞ্চায়েত নির্বাচনের ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া ঘিরে দুটো ভিন্ন চিত্র দেখল হাওড়া৷ হাওড়ায় মোট ৩৮ টি বুথে পুনর্নির্বাচন হয়েছে। হাওড়া সদরের ৫টি ব্লকের ৯টি বুথে এবং উলুবেড়িয়ার ৭টি (মোট ব্লক ৯টি) ব্লকের ২৯টি বুথে বুধবার সকাল থেকে ভোট চলল। শান্তিপূর্ণভাবেই মিটল ভোট।

হাওড়া সদরে বালি-জগাছা, ডোমজুড়, জগৎবল্লভপুর, সাঁকরাইল এই চারটি ব্লকের প্রতিটির ২টি করে বুথে পুনর্নির্বাচন হয়েছে। অন্যদিকে, পাঁচলা ব্লকের ১ টিতে পুনর্নির্বাচন হয়েছে। উলুবেড়িয়ায় ৯টি ব্লকের মধ্যে যে ৭টি ব্লকের ২৯টি বুথে এদিন পুনর্নির্বাচন হয়েছে সেগুলি হল উলুবেড়িয়া-১ এর ৯ টি, উলুবেড়িয়া-২ এর ১০ টি, শ্যামপুর-১ এর ৫ টি, শ্যামপুর-২ এর ১ টি, আমতা-২ এর ১ টি, বাগনান-১ এর ২ টি, বাগনান-২ এর ১ টি বুথে পুনর্নির্বাচন হয়েছে।

তবে হাওড়ার উদয়নারায়ণপুর ও আমতা-১ ব্লকের কোনও বুথে পুনর্নির্বাচন হয়নি। সেই সঙ্গে পুনর্নির্বাচনেও ছাপ্পা ভোট ও বুথ জ্যামের অভিযোগ তুলল বিজেপি। হাওড়ার জগৎবল্লভপুর এলাকায় এই অভিযোগ উঠেছে। বুধবার সকাল থেকে জগৎবল্লভপুরের বামনপাড়া হাই স্কুলে ভোট শুরু হয়। বিজেপির অভিযোগ, স্থানীয় মণ্ডল সভাপতি অশোক সিং ভোট শুরু হওয়ার আগে প্রার্থীর বাড়িতে জেলা পরিষদের এজেন্টের ফর্ম দিতে যায়৷ কিন্তু সেখানে তাকে ঘিরে ধরে মারধর করে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা।

এরপর ওই বুথে ভোট শুরু হলেও সেখানে বুথ জ্যাম ও ছাপ্পা ভোটের অভিযোগ ওঠে। উল্লেখ্য, গত সোমবার এখানে ভোটের দিনেও ব্যাপক অশান্তি হয়েছিল। যে কারণে এখানেও পুনর্নির্বাচনের নির্দেশ দেয় নির্বাচন কমিশন।

পাশাপাশি এদিন ভোট চলাকালীন হাওড়ার সাঁকরাইল ব্লকের পাঁচপাড়া থেকে উদ্ধার হয় তাজা বোমা। ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রবল চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। জানা গিয়েছে, ওই এলাকায় হাজি আকবর আলি কাজি প্রাইমারি স্কুলের বুথে এদিন ভোট চলছিল। তখনই রাস্তার ধারে একটি এলাকা থেকে ওই তাজা বোমা উদ্ধার হয়।

এদিন ভোট শুরু হতেই অশান্তি দেখা দেয় উলুবেড়িয়ার বাগগাছার একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫০ নং বুথে৷ বহিরাগতরা বুথে ঢুকতে গেলে বাধা দেয় স্থানীয় বাসিন্দারা। অভিযোগ, বাধাপ্রাপ্ত হয়ে বুথ সংলগ্ন কয়েকটি বাড়িতে আগুন লাগায় বহিরাগতরা। এই নিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়েছে এলাকায়। ঘটনায় আক্রান্ত হয় বিজেপির মণ্ডল সভাপতি অশোক সিং৷