কলকাতা: যারা মনে করেন এই ভোটের বাজারে সৎ ভদ্র শিক্ষিত প্রার্থী নেই তাদের কাছে কিছুটা ভিন্ন বার্তা দিয়ে নন্দিনী মুখোপাধ্যায়ের কথা তুলেছেন ‘ভবিষ্যতের ভূত’ ছবির পরিচালক অনীক দত্ত ৷ অনেক সময় সাধারণ ভোটারদের আক্ষেপ করতে শোনা যায়, ভোট দেওয়ার ক্ষেত্রে তাদের কাছে কোনও বিকল্প নেই ভোটে দাঁড়ান সব প্রার্থীই হয় অসৎ নয় অশিক্ষিত নয় অভদ্র ৷

কিন্তু ভোটারদের এমন ধারণাটা ঠিক নয় বরং তেমন প্রার্থী সামনে পেলেও ভোটাররা সেই মানুষকে শেষমেশ ভোট দেন কি না তা নিয়ে কিঞ্চিত সন্দেহ রয়েছে বলেই মনে হয়েছে তাঁর ওই ফেসবুক বার্তায়৷ অনীক দত্ত তাঁর ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন,”নন্দিনী মুখোপাধ্যায়কে ভোট না দিলে, না দেবেন; কিন্তু, তারপর আর ঘ্যান ঘ্যান করবেন না..’সৎ, ভদ্র, শিক্ষিত লোকেরা রাজনীতিতে আসেন না কেন?” তিনি ওই পোস্টে নিজেকে উল্লেখ করেছেন একজন চিত্র পরিচালক এবং দক্ষিণ কলকাতার ভোটার হিসেবে৷

প্রসঙ্গত, নন্দিনী মুখোপাধ্যায় হলেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্টিস্ট ও অধ্যাপিকা৷ তিনি এবার দক্ষিণ কলকাতা কেন্দ্রের সিপিএম প্রার্থী। তিনি ২০১১ সালে ভবানীপুর বিধানসভার উপনির্বাচনে সিপিএম প্রার্থী হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন এবং সেবার তৃণমূল প্রার্থী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পরাজিত হয়েছিলেন৷

অনীক দত্তের পোস্টের কয়েকটি শব্দের মধ্যে দিয়ে যেমন একদিকে নন্দিনীকে ‘সৎ, ভদ্র, শিক্ষিত’ হিসেবে তকমা দিয়েছেন৷ অন্যদিকে সেই সব সাধারণ ভোটারদের ভণ্ডামিকেও একহাত নিয়েছেন যারা সব জেনে শুনেও কোনও অসৎ অভদ্র অশিক্ষিত প্রার্থীকেই ভোট দেওয়ার জন্য বেছে নেন শুধুমাত্র কোনও রাজনৈতিক দলের প্রতি আনুগত্য বা সমর্থন প্রকাশ করতে এবং পরে তারাই তাদের কৃতকার্যের জন্য হা হুতাশ করেন ৷ অর্থাৎ এই পোস্টে ভোটারদের একপ্রকার সতর্ক করেছেন এই চলচ্চিত্র পরিচালক৷

এদিকে সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র তার ফেসবুক পেজে অনীক দত্তের এই পোস্টটি উল্লেখ করে তাঁকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ৷ তিনি সেখানে লিখেছেন, ‘‘ধন্যবাদ, অনীক পোস্ট মডার্ণ ভন্ডামির গালে সজোরে থাপ্পড় মারার জন্যে!’’