নয়াদিল্লি: জুলাই মাসে পেশ করা বাজেটে আয়করে ছাড় না মিললেও প্রত্যক্ষ কর বিধি সংক্রান্ত টাস্ক ফোর্সের সুপারিশে তা কমাতেই বলা হল ৷ সূত্রের খবর তেমনটাই৷ সোমবার অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামানের কাছে জমা পড়েছে প্রত্যক্ষ কর বিধি সংক্রান্ত সেই রিপোর্ট। সেই রিপোর্টে, আয়কর, কর্পোরেট কর ব্যবস্থা ইত্যাদি ঢেলে সাজাতে খুটিয়ে দেখা হয়েছে আমেরিকার মতো দেশের কর কাঠামোকে ৷ সেখানে সাম্প্রতিক রদবদল খুঁটিয়ে দেখে এই টাস্ক ফোর্সও তেমন সুপারিশ করেছে।

প্রসঙ্গত গত জুলাইয়ে পেশ হওয়া বাজেট হতাশ করেছে শেয়ার বাজারের। তাছাড়া বড় সংস্থাগুলি প্রশ্ন তুলেছে, কর্পোরেট করের সুবিধা থেকে কেন তাদের বাদ দেওয়া হয়েছে? তাছাড়া এবারে সারচার্জ বসানো নিয়েও শিল্প ও এক শ্রেণির বিদেশি লগ্নিকারী সংস্থাগুলির মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে। যার প্রভাব লক্ষ্য করা গিয়েছে শেয়ার বাজারের সূচকে। টাস্ক ফোর্সের সুপারিশে সরকার ঘোষিত প্রস্তাবগুলির উল্টো সুর গাইতে দেখা গিয়েছে৷

সূ্ত্রের খবর মধ্যবিত্ত, উচ্চবিত্তদের আয়কর ছাড় বাড়ানো, সারচার্জ তোলার কথার পাশাপাশি সব সংস্থার কর্পোরেট করই ২৫% রাখার কথা বলেছে৷ যেখানে বিদেশি সংস্থাগুলিকে এখন ৪০% হারে কর্পোরেট কর দিতে হয়৷ বিভিন্ন মহলের ধারণা, এই সুপারিশগুলি বাস্তবায়িত হলে কিছুটা গোটা দেশে আর্থিক দিক দিয়ে স্বস্তি ফিরতে পারে। কারণ বর্তমানে চাহিদার অভাবে ধুকছে দেশের বিভিন্ন শিল্পক্ষেত্র৷ অর্থ মন্ত্রক সূত্রের খবর, সুপারিশ কার্যকর করতে বার্ষিক ৫০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় করমুক্ত হতে পারে।

তাছাড়া সম্প্রতি কাফে কফি ডে-র কর্তা ভি জি সিদ্ধার্থের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘিরে যেভাবে ‘কর-সন্ত্রাসের’ অভিযোগও উঠেছে তার প্রেক্ষিতে রিপোর্টে সুপারিশ করা হয়েছে করদাতাদের হেনস্থা কমাতে আয়কর আইন যেন আরও করদাতা-বান্ধব করা হয়। পাশাপাশি নজর দিতে বলা হয়েছে, এমন প্রত্যক্ষ কর বিধি করার, যাতে এই ধরনের মামলার সংখ্যা কমে।