স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সম্মানে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের দেওয়া নৈশভোজের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করলেন লোকসভার কংগ্রেস দলনেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী। নৈশভোজে কংগ্রেসের অন্তবর্তীকালীন সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীকে আমন্ত্রণ না জানানোর প্রতিবাদেই নৈশভোজ বয়কটের সিদ্ধান্ত অধীরের।

দুদিনের সফরে ভারতে আসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তাকে স্বাগত জানাতে সেজে উঠেছে মোতেরা স্টেডিয়াম। তবে এই অনুষ্ঠান নিয়ে ঘোরতর বিরোধিতা কংগ্রেস সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরীর। কেন এতো খরচ করে ট্রাম্পকে স্বাগত জানানো হচ্ছে, তা নিয়েই প্রশ্ন তুলছেন তিনি। মঙ্গলবার রাষ্ট্রপতি ভবনে নৈশভোজের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান অধীরের।

শনিবার বহরমপুরের সাংসদ অধীর চৌধুরী বলেন, ‘দুই বৃহৎ গণতান্ত্রিক রাষ্টের প্রতিনিধি হিসাবে মুখোমুখি হবেন ট্রাম্প ও মোদী। গণতন্ত্রের বহু মাত্রা রয়েছে। যার অন্যতম শালীনতা এবং শিষ্টাচার। প্রধানমন্ত্রী যখন আমেরিকা গিয়েছিলেন সেই সময় হাউডি মোদী-তে সেদেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক দল রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাটদের প্রতিনিধিরা ছিলেন। কিন্তু ট্রাম্পের নৈশভোজে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী আমন্ত্রণ পাননি।’ মোদীর প্রতি কটাক্ষ ছুড়ে দিয়ে অধীর জানান, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রীর অভিধানে গণতন্ত্রের অর্থ বদলে গিয়েছে। এখন শুধুই মোদী শো। যেন ভারত মানেই মোদী।’

তিনি বলেন, ‘কংগ্রেস ১৩৪ বছরের রাজনৈতিক দল। বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক দেশেই এই দলের নেতারা স্বীকৃত। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সম্মানে যে নৈশভোজের আয়োজন রাষ্ট্রপতি করেছেন তাতেই আমন্ত্রিত নন সোনিয়া গান্ধী। যা অপমানকর। তাই ওই নৈশভোজ প্রত্যাখ্যান করা ছাড়া আমার কোনও উপায় নেই।’

২৪ ও ২৫ ফেব্রুয়ারি স্ত্রী মিলানিয়াকে নিয়ে ভারতে সফরে আসছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। সফরের প্রথম দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর রাজ্য গুজরাতে পৌঁছাবেন তাঁরা। মোতেরা স্টেডিয়ামের উদ্বোধন করবেন প্রেসিডেন্ট। সেখানেই তাঁকে স্বাগত জানাতে উপস্থিত থাকবেন ৭০ লক্ষ মানুষ। ভারত সফরের আগে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করলেও ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি হবে না বলে ঘোষণা করেন প্রেসিডেন্ট। পরে অবশ্য বলেন, ভারত-আমেরিকার মধ্যে অল্প পরিমাণে বানিজ্য চুক্তি হবে।ট্রাম্পের সফরে ভারতের কোনও লাভ হবে না বলে মন্তব্য করলেন অধীর চৌধুরী। তাঁর কটাক্ষ, দুজন মাচো রাজনীতিক রাজনীতিক বৈঠক করবেন, খাবেন ও সংবাদমাধ্যমের মধ্যমণি হয়ে থাকবেন।