প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: গত সোমবার বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে৷ কিন্তু তা সত্ত্বেও নির্বাচন পরবর্তী সন্ত্রাস থামার কোন নামই নিচ্ছে না বারাকপুরে। বিজেপি ও তৃণমূল উভয় দলই উভয়ের বিরুদ্ধে নির্বাচন পরবর্তী সন্ত্রাস ছড়ানোর অভিযোগ করেছে।

এরই মধ্যে বারাকপুরে আইনশৃঙ্খলা অবনতির জন্য শুক্রবার দুপুরে পুলিশ কমিশনার সুনীল কুমার চৌধুরীর সঙ্গে দেখা করেন ওই লোকসভা কেন্দ্রের বিদায়ী সাংসদ তথা তৃণমূল প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদী। গত বুধবার রাতে উত্তর ২৪ পরগণার জগদ্দল থানার শ্যামনগর এলাকায় রাজু সিং নামে এক তৃণমূল এজেন্টকে কুপিয়ে খুনের চেষ্টার ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে।

আগামী দিনে যাতে বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলার অবনতি না হয়, বারাকপুরের সমস্ত এলাকা যাতে স্বাভাবিক থাকে ও শান্তি শৃঙ্খলা যাতে বজায় থাকে, তার জন্য শুক্রবার দুপুরে আহত রাজু সিং-র প্রতিবেশীদের সঙ্গে নিয়ে পুলিশ কমিশনার সুনীল কুমার চৌধুরীর সঙ্গে দেখা করতে যান দীনেশ ত্রিবেদী।

পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে দেখা করতে এসে দীনেশ ত্রিবেদী বলেন, ‘‘বিজেপি খুব ভালো করে জানে বিজেপি নির্বাচনে হেরে গিয়েছে তাই এই ধরনের বিজেপি নির্বাচন পরবর্তী সন্ত্রাস চালাচ্ছে। রাজু সিং সুস্থ হয়ে উঠুক এটাই প্রার্থনা করি। পুলিশ কারোর একার নয়৷ কোন রাজনৈতিক দলের নয় তারা নিরপেক্ষভাবে তদন্ত করবে এবং আগামী দিনে ভালো কাজ করবে।’’ যদিও রাজু সিং-কে কুপিয়ে খুনের চেষ্টার ঘটনায় জগদ্দল থানার পুলিশ দুইজনকে গ্রেফতার করেছে। তাদেরকে শুক্রবার বারাকপুর আদালতে পাঠানো হয়েছে।

তবে অর্জুন সিং এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷ তাঁর দাবি, রাজু সিং-কে কুপিয়ে খুন করার চেষ্টায় বিজেপির কেউ জড়িত নয় পুর ঘটনাটি তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষর ফলে ঘটেছে। তিনি এই দিন সাংবাদিক সম্মেলন করে বলেন, ‘‘কি করে দীনেশ ত্রিবেদী পুলিশ কমিশনারের কাছে গেলেন আর কোন নিয়মে পুলিশ কমিশনার তার সঙ্গে বৈঠক করলেন। ভোটের পর থেকে বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় বেছে বেছে শুধুমাত্র বিজেপি নেতা কর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। আমাকে চক্রান্ত করে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। তার একটা অডিও টেপ আমার কাছে আছে। ঠিক সময় মতো প্রেসের কাছে দেব। আগে নির্বাচন কমিশনের কাছে পাঠাচ্ছি, তারপর মিডিয়াকে দেব।’’