গ্রাফিক্স- kolkata24x7

হাওড়া: রাজ্যকে তীব্র কটাক্ষ বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের। শুক্রবার সকালে উত্তরপ্রদেশের মন্ত্রী এস পি সিং বাঘেলকে সঙ্গে নিয়ে দিলীপবাবু কুম্ভমেলার আমন্ত্রণ জানাতে বেলুড় মঠে আসেন। সেখানেই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি।

রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের বকেয়া ডিএ চলতি মাসেই দেওয়া হবে বলে বীরভূমে প্রকাশ্য সভায় ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর অভিযোগ ছিল বিজেপি কেন্দ্রে ক্ষমতায় এসে রাজ্যে যা ছিল তা-ও কেড়ে নিচ্ছে। এনিয়ে শুক্রবার বেলুড় মঠে দিলীপ ঘোষকে সাংবাদিকেরা প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, “এখনও পর্যন্ত দিদি কিছু দেননি। শুধু ভাষণ দিচ্ছেন। একবার জুন মাসে ঘোষণা করলেন। একই ঘোষণা আবার জানুয়ারিতে করছেন। আগে তো হাতে টাকা আসুক। না আঁচালে দিদিমণিকে বিশ্বাস নেই। এর আগে কেন্দ্র সরকার ৩২ শতাংশ দিত। এই কেন্দ্রের মোদী সরকার ৪২ শতাংশ দিচ্ছে। এদের পেট এত বেড়ে গেছে যে আর ভরছে না।’

আরও পড়ুন : ‘জঙ্গিদের মত কথা বলছেন বিজেপি বিধায়ক’

তারপরেই তিনি বলেন ‘মেলা, খেলা আর ক্যাডার পুষতে গিয়ে সব চলে যাচ্ছে। ডিএ দেওয়া যাচ্ছে না। বেতন বাড়ানো যাচ্ছে না। উন্নয়নের কাজ করা যাচ্ছে না।” পাশাপাশি অনুব্রত প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, “কেষ্টকে কেউ সাইড করতে পারবে না। উনিই ওখানে পার্টির সব। ওটাই তৃণমূলের আসল মুখ। বাকি সব লোক দেখানো। বোমা মারো, বাড়ি ওড়াও, মারো পেটাও এটাই হচ্ছে ওদের রাজনীতি। দিদির কৃপাতে উনি এসব করছেন। এসব বলছেন।”

বিজেপির রথযাত্রা প্রসঙ্গে এদিন দিলীপবাবু বলেন, “অবশ্যই রথযাত্রা হবে। কোর্টের উপর আমাদের বিশ্বাস আছে। সুপ্রিম কোর্টে শুনানি চলছে। আমার মনে হয় গণতন্ত্রের পক্ষেই রায় আসবে।”

আরও পড়ুন : মোদী সরকারের বড়সড় বদল: চিন্তা বাড়িয়ে ফিরছে পাশ-ফেল প্রথা

উল্লেখ্য, আগামী ১৫ জানুয়ারি উত্তরপ্রদেশের দিব্য কুম্ভমেলার আমন্ত্রণপত্র নিয়ে শুক্রবার সকালে বেলুড়মঠে আসেন উত্তরপ্রদেশের মন্ত্রী এস.পি. সিং বাঘেল। সঙ্গে ছিলেন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেখানেই দিলীপবাবু সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন।

এদিন এস.পি.সিং বাঘেল বলেন, বেলুড়মঠ, ভারত সেবাশ্রম সংঘ, ইসকন সহ অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানকে কুম্ভমেলার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে। এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠিকেও আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে। কুম্ভ একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। এতে সব রাজ্যের সব দলের ধর্মাবলম্বী মানুষ আসেন। রথযাত্রা নিয়ে তাঁর বক্তব্য, এখানকার মুখ্যমন্ত্রী কেন ভয় পাচ্ছেন। আইন শৃঙ্খলা রক্ষা করা ওনার দায়িত্ব।