কলকাতা: ক্রমেই সংঘাত বাড়ছে দলের অন্দরে৷ বিতর্ক ধামাচাপা দিতে এবার আরও বেশি আক্রমণাত্মক দিলীপ ঘোষ৷ তাঁর বিরুদ্ধে মুখ খোলায় আবারও তুলোধনা করলেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়কে৷ বাবুলের সঙ্গে একই বন্ধনীতে রেখে কাঠগড়ায় তুললেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর পরিবারের সদস্য তথা বিজেপি নেতা চন্দ্র বসুকেও৷

রাজ্য বিজেপিতে দ্বন্দ্ব কমার লক্ষণ নেই৷ সোমবারের পর মঙ্গলবারও বাবুল সুপ্রিয়র কড়া সমালোচনায় সরব হলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷ দিলীপের বিরুদ্ধে মন্তব্য করায় তাঁর রোষের মুখে বাবুল৷ রবিবার নদিয়ার জনসভায় রাজ্যে নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি নিয়ে আন্দোলনকারীদের একাংশকে নিশানা করে দিলীপ বলেন, ‘যারা সম্পত্তি নষ্ট করছে তাদের উত্তরপ্রদেশের মতো গুলি করে মারা উচিত।’

মেদিনীপুরের সাংসদের এই মন্তব্যের পরই সমালোচনার ঝড় ওঠে রাজনৈতিক মহলে। বিজেপি বিরোধী নেতারা দিলীপ ঘোষের বক্তব্যের নিন্দায় সরব হন। কড়া সমালোচনা করেন বিজেপি সাংসদ বাবলু সুপ্রিয়৷ টুইট করে বাবুল লেখেন,‘দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য করেছেন দিলীপদা। দিলীপ ঘোষ যা বলেছেন, তার সঙ্গে বিজেপির কোনও সম্পর্ক নেই। তিনি যা বলেছেন, সবটাই তাঁর মস্তিষ্কপ্রসূত।’

সোমবারের পর মঙ্গলবারও সমালোচর মুখে পড়েও অনড় দিলীপ ঘোষ৷ নিজের মন্তব্যে অনড় থেকেই দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘পার্টি লাইন কে ঠিক করেন? অমিত শাহ নাকি বাবুল সুপ্রিয়। বাবুলের কথা শুনে মনে হচ্ছে তিনিই পার্টি লাইন ঠিক করে দেবেন। আমি পার্টির লাইন মেনেই এই কথা বলেছি।’

বাবুলের সঙ্গে একই বন্ধনীতে রেখেছেন চন্দ্র বসুকেও৷ চন্দ্র বসুও দিলীপ ঘোষের নেতৃত্ব নিয়ে অনাস্থা প্রকাশ করেছিলেন৷ দিলীপকে নিশানা করে চন্দ্র বসু বলেন, ‘অযোগ্য-অকর্মণ্যরা নির্বাচিত হলে এর থেকে বেশি কিছু আশা করা যায় না।’ বিজেপি রাজ্য সভাপতির বিরুদ্ধে কথা বলে তাঁর রোষের মুখে পড়েছেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর পরিবারের সদস্য চন্দ্র বসু৷ মঙ্গলবার চন্দ্র বসুকেও অরাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব বলে কটাক্ষ করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও