দেবময় ঘোষ, কলকাতা: ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের জন্য বিজেপির ‘টিম’ সাজিয়ে দিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। পূর্ব পরিকল্পনা মাফিক ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনের ‘উইনিং কম্বিনেশন’ ভাঙতে চান না অমিত। রাজ্য নেতৃত্বকে তিনি তা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন। সুতরাং, একুশের মহা গুরুত্বপূর্ণ বিধানসভা নির্বাচনে ঊনিশের ১৮টি আসন জয়ী ‘টিম’-ই বিজেপিতে থাকবে তা দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায় , কৈলাস বিজয়বর্গীয় দের পরিষ্কার করে দিয়েছেন দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত অনিলচন্দ্র শাহ।

পশ্চিমবঙ্গের সভাপতি হিসাবে দিলীপ ঘোষের দ্বিতীয় দফা চলছে। ২০২১ সাল পর্যন্ত তাঁর সভাপতি থাকা নিয়ে কোনও বাধা নেই। কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব ( পড়ুন অমিত শাহ) তা-ই চান। জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মুকুল রায় লোকসভা নির্বাচনে নির্বাচন ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান হিসাবে পরিচালনা করেছেন। তৃনমূল ভাঙানোর খেলায় মেতেছিলেন তিনি।

সূত্রের যা খবর, অমিত শাহ, কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে জানিয়ে দিয়েছেন তাঁকেই ২০২১ পর্যন রাজ্যের পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব সামলাতে হবে। উত্তর বঙ্গের ‘বিশেষ’ দায়িত্ব সামলাবেন অরবিন্দ মেনন। এই সিদ্ধান্তের কোনও নড়চড় হবে না। বৈঠকে অমিত শাহ’র কথাটা পুরস্কার, টিম একই থাকবে। সুতরাং, দিলীপ ঘোষ যে সভাপতি থাকবেন তাও বৈঠকে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন অমিত। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার মুকুল রায়কে প্রশ্ন করা হলে তিনিও বলেন, “সভাপতি দিলীপ দা থাকছেন।”

সূত্রের যা খবর, অমিত শাহ, কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে জানিয়ে দিয়েছেন তাঁকেই ২০২১ পর্যন রাজ্যের পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব সামলাতে হবে। উত্তর বঙ্গের ‘বিশেষ’ দায়িত্ব সামলাবেন অরবিন্দ মেনন। এই সিদ্ধান্তের কোনও নড়চড় হবে না। বৈঠকে অমিত শাহ’র কথাটা পুরস্কার, টিম একই থাকবে। দুই সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) সুব্রত চট্টোপাধ্যায় এবং কিশোর বর্মন নিজের পদেই থাকছেন। সুতরাং, দিলীপ ঘোষ যে সভাপতি থাকবেন তাও বৈঠকে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন অমিত। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার মুকুল রায়কে প্রশ্ন করা হলে তিনিও বলেন, “সভাপতি দিলীপ দা থাকছেন।”

তবে রাজ্য নেতৃত্বের জন্য বৈঠকে সব কিছুই সুখের ছিল না বুধবার রাতের বৈঠকে। সম্প্রতি, সংবাদমাধ্যমে পরস্পর মুকুল রায় এবং দিলীপ ঘোষের দ্বন্দ্বের কথা ফলাও করে প্রচার হয়েছে। তা নজর এড়ায়নি অমিতের। তাছাড়া, রাজ্য দলকে না জানিয়ে দিল্লিতে নিয়ে গিয়ে মুকুল-কৈলাস অনেককে যোগদান করিয়েছিলেন বলে আপত্তি তুলেছিলেন দিলীপ-সুব্রত। বিজেপির ভিতরেই দ্বন্দ্ব প্রকট হচ্ছিল। এই ধরণের ঘটনা থেকে দূরে থাকতে বলেছেন অমিত। মুকুল-কৈলাস গোষ্ঠীর সঙ্গে দিলীপ-সুব্রত-মেনন গোষ্ঠীর সমন্বয়ের যাতে কোনও অভাব না হয় সেই ব্যাপারে পরোক্ষে সতর্ক করেছেন অমিত শাহ।