নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: ‘মানুষ মেরে মানুষ প্রেম, বিজেপি তুমি shame shame’, লোকসভা ভোটের প্রচারে মমতার এই স্লোগান পরিচিত হয়ে উঠেছিল। যদিও সেই আক্রমণ খুব একটা ধোপে টেকেনি। অবিশ্বাস্যভাবে বাংলায় আসন বাড়িয়েছে বিজেপি। এবার মমতার সেই স্লোগানেই মমতাকে বিঁধলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

বিদ্যাসাগর কলেজে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঈশ্বরচন্দ্রের মূর্তি প্রতিষ্ঠা করেছেন। আর সেই উদ্যোগকে সম্পূর্ণ ‘নাটক’ বলে কটাক্ষ করলেন দিলীপ ঘোষ। বিজেপির রাজ্য সভাপতির সাফ বক্তব্য, “মূর্তি ভেঙে, মূর্তি প্রেম” করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এজন্য মুখ্যমন্ত্রীকে ধিক্কারও জানিয়েছেন তিনি। লিখেছেন, “মূর্তি ভেঙে, মূর্তি প্রেম, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় shame shame.”

ফেসবুকে একটি পোস্ট করে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার ঘটনায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই নিশানা করেন দিলীপ ঘোষ। তাঁর দাবি, রাজ্যে যে সন্ত্রাসের পরিবেশ তৈরি করেছে তৃণমূল কংগ্রেস, তার থেকে সাধারণ মানুষের নজর ঘোরাতেই এসব ‘নাটক ফেঁদেছেন’ তৃণমূল নেত্রী।

মঙ্গলবারই হেয়ার স্কুলে বিদ্যাসাগরের আবক্ষ মূর্তি উন্মোচন করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপর হেয়ার স্কুল থেকে বিদ্যাসাগর কলেজ পর্যন্ত পদযাত্রা করে সেই মূর্তি নিয়ে যাওয়া হয়।

এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অমিত শাহকে সরাসরি তাঁকে আক্রমণ করে মমতা বলেন, “আজ যিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, তাঁর জন্যই ভেঙেছে বিদ্যাসাগর মূর্তি। ওরা আমাদের সংস্কৃতি ভেঙে দিতে চায়।” এরপরেই রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধানের হুঁশিয়ারি, “বাংলাকে কখনই গুজরাত বানাতে দেব না। তাতে আমায় জেলে যেতে হলেও যাবো। বাংলার মাটিতে থেকে বাংলাকে অপমান করা যাবে না, আমি প্রাণ দিয়ে লড়বো।”

এখানেই শেষ নয়। এই বিষয়ে বিজেপিকে আরও ভাষায় আক্রমণ শানান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, গান্ধীজি গুজরাটে যে সন্মান পাননি, বাংলায় পেয়েছেন। বিদ্যাসাগর ভেঙে দিয়ে বর্ণপরিচয় ভেঙে দেওয়া যায় না। আমাদের কৃষ্টিতে আঘাত করে বাংলাকে ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও মারাত্মক অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁর দাবি, একটা চক্রান্ত চলছে। আর এই চক্রান্তের বিরুদ্ধে সকল মানুষকে একজোট হওয়ার বার্তা দেন মুখ্যমন্ত্রী। সংস্কৃতি থেকে সমাজের সমস্ত মানুষকে এগিয়ে আসার ডাক দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতার মতে, সবার জন্যে এই গেরুয়া নয়। গেরুয়া পোশাক তাঁদের জন্যেই যারা এই পোশাককে সম্মান করতে পারে। মাথায় ফেট্টি বেঁধে কেউ যদি মনে করে আমি আধুনিক তাহলে এভাবে সংস্কৃতি বদল করা যায় না।