স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ভাটপাড়া উপনির্বাচনের পর এলাকায় অশান্তির ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীকে পৌঁছে দিয়েছেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷ রাজ্যপালের মাধ্যমে ওই রিপোর্ট স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে পৌঁছে যাক চায় বিজেপি৷ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব রাজ্য সরকারের৷ কিন্তু রাজ্য বিজেপির সভাপতি চাইছেন, রাজ্যপাল বিষয়টি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং নির্বাচন কমিশনকে জানাক৷ মূদ্রার অন্য পিঠও রয়েছে৷

একই সঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেছেন, বিজেপির কর্মীরা চুপ করে বসে থাকবে না৷ যদি দুষ্কৃতকারীরা রাস্তায় নামে তবে তাদের কীভাবে প্রতিরোধ করতে হয় আমরা জানি৷ কোন ফুলে কোন ভগবান পুজো হয় আমরা জানি৷

একদিকে দিলীপ যেমন অশান্তির আবহ কাটাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের হস্তক্ষেপ চেয়েছেল, অন্যদিকে হুমকির সুরে আইন হাত নেওয়ারও তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন৷ রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর সঙ্গে দেখা করে এসে স্ববিরোধী মন্তব্য করেছেন দিলীপ৷ দিলীপ এদিন রাজ্যের অন্যান্য নেতৃত্ব – সাধারণ সম্পাদক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়, নির্বাচন ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য তথা সহ সভাপতি জয়প্রকাশ মজুমদার, সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় সিং দিলীপ ঘোষের সঙ্গে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করতে যান৷ দিলীপ এদিন বলেছেন, কিছুদিন আগেও রাজ্যে ৯০ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী ছিল৷ দার্জিলিং থেকে জঙ্গলমহলে বাহিনী ছিল৷ কিন্তু প্রশ্ন উঠবে, রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনীর প্রয়োজন হয় কেন?

রাজ্যপালকে বিজেপি যে চিঠি দিয়েছে সেখানে ভাটপাড়া এলাকার দুই পুলিশ অফিসারের নাম উল্লেখ করে অভিযোগ জানানো হয়েছে যে, ওই অফিসাররা গণ্ডোগোলে মদত দিয়েছে৷ দুষ্কৃতকারীদের সাহায্যও করেছে৷ দিলীপের সরাসরি অভিযোগ ভাটপাড়ায় দুটি গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে৷ শাসকদলের মদত রয়েছে৷ শাসকদল গণ্ডোগোলে ইন্ধন দিচ্ছে৷