স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: ‘ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে’ বুঝে নেওয়ার পরিবর্তে সকালে নরেন্দ্র মোদী, বিকেলে অমিত শাহের বাড়িতে ছুটছেন রাজ্য়ের মুখ্য়মন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। এই ভাষাতেই মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়কে কটাক্ষ করলেন রাজ্য় বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷ তাঁর কটাক্ষ এবার হয়তো তার সঙ্গেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেখা করতে আসতে পারেন৷

বৃহস্পতিবার বাঁকুড়ার সোনামুখীতে দলের এক কর্মী সভায় যোগ দিতে এসে বিজেপির রাজ্য সভাপতি ও সাংসদ দিলীপ ঘোষ সোনামুখী সংস্কৃতি ভবনে বক্তব্য রাখেন৷ সেখানেই রাজ্য় সরকারকে আক্রমণ করেন তিনি৷ এদিন দিলীপ ঘোষ বলেন ‘দেশে নোট বন্দীর পর ‘দিদিমনি’ রাস্তায় হাঁটলেন। মাটির তলায় পুঁতে রাখা সব টাকা পয়সা গেল। তাই খাওয়া দাওয়া ছেড়ে কান্নাকাটি আর মিছিল করলেন। অথচ তিনি কিছুই করতে পারেননি।’

আরও পড়ুন : স্থানীয় পুলিশকে ডাকুন, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে বললেন বাবুল

দিলীপের দাবি,এক দেশ, এক কর নীতি জিএসটি-র বিরুদ্ধে গিয়েও উনি কিছুই করতে পারেননি। সম্প্রতি কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা তোলার কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত নিয়ে বলতে গিয়েও মুখ্যমন্ত্রীকে খোঁচা দিতে ছাড়েননি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, এই বিল লোকসভা-রাজ্য সভায় পাশের সময় ওনার দলের সদস্যরা ‘ভয়ে পালিয়ে গিয়েছিলেন’৷

এদিন তাঁর বক্তব্য়ে উঠে আসে গোয়েন্দা প্রধান রাজীব কুমার প্রসঙ্গ৷ সিবিআই এর তল্লাশি প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বিজেপি রাজ্য সভাপতি বলেন, রাজীব কুমারের কলার ধরে সিবিআই জেলে ঢোকাবে।

আরও পড়ুন : বাংলায় এনআরসি নিয়ে অমিত শাহ কিছু বলেননি : মমতা

দিলীপ ঘোষের এদিনের বক্তব্যের সিংহভাগ জুড়ে ছিল রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে বিরোধিতা৷ লোকসভা ভোট প্রসঙ্গে টেনে বলেন, ৪২-এ ৪২ আসন জিতবেন বলেছিলেন মুখ্য়মন্ত্রী৷ বলেছিলেন বিজেপি শূণ্য পাবে। কিন্তু বিজেপি সেখানে ১৮টি আসন জিতেছে। বহুচর্চিত ‘বাঘে ছুঁলে আঠারো ঘা, পুলিশে ছুঁলে ছত্রিশ’ প্রবাদ বাক্য টেনে এদিন দিলীপ বলেন, এর ৩৬ টা বাকি আছে। বাংলার মানুষ আপনাকে ছুঁড়ে ফেলে দেবে।

রাজ্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের দুর্দশার জন্য় দায়ি তৃণমূল৷ এমনই দাবি রাজ্য় বিজেপি সভাপতির৷ তাঁর মতে কংগ্রেস ও সিপিএমও সমান দায়ি এজন্য৷ তাঁর কটাক্ষ এদের শুধু ‘ভোটার’ বানিয়ে রেখে দেওয়া হয়েছে।