স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: কলকাতার মেয়র তথা দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলা সভাপতি ছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়৷ তাই তাঁর বিজেপি যোগে ওই জেলায় বিজেপির সাংগঠনিক শক্তি বাড়বে৷ এমনটাই মত বিজেপির৷

রবিবার বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানান, শোভনদা বহু বছর ধরে দক্ষিণ ২৪ পরগনার কাজ দেখছেন৷ ওনি এলে অনেক লাভ হবে ৷ তৃণমূল ও অন্য পার্টির অনেকেই বিজেপিতে আসবেন৷ বিজেপির দক্ষিণ ২৪ পরগনার সংগঠন আরও মজবুত হবে৷

অবশ্য তার আগে এক তৃণমূল নেতার গলায় শোনা গিয়েছে একই কথা৷ গত বৃহস্পতিবার ৭৩তম স্বাধীনতা দিবসের দিনে নিজের ওয়ার্ড অফিসে জাতীয় পতাকা তুলেন সব্যসাচী দত্ত৷ সেখানে তিনি কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের ভূয়সী প্রশংসা করেন৷ তিনি জানান, শোভনদা’র পুরানো অভিজ্ঞতা রয়েছে৷ সেই সঙ্গে নতুন দলে যোগ দেওয়ার উদ্যম। দুইয়ে মিলে ভালোই হবে৷ সাংগঠনিকভাবে শোভনদা দীর্ঘদিন দক্ষিণ ২৪ পরগনা তৃণমূল জেলা সভাপতি ছিলেন৷

একই কথা বলেছেন মুকুল রায়৷ নিজের বাড়িতে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে, শোভন চট্টোপাধ্যায়ের প্রশংসা করে জানান, শোভনের বিজেপিতে যোগদানের ফলে বিজেপির শক্তি অনেকটাই বাড়ল৷ সব মিলিয়ে সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বিজেপিতে যোগদান তৃণমূলকে কিছুটা অস্বস্তিতে ফেলেছে৷ এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

যদিও অনেক আগেই তৃণমূল ভবনে অনুষ্ঠিত তৃণমূলের কোর কমিটির বৈঠকে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। তাঁর জায়গায় দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার নতুন সভাপতি করা হয়েছে শুভাশিস চক্রবর্তীকে। সেই সময় জেলা সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে করা হয়েছিল পর্যবেক্ষক৷

বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে গত বুধবার বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের হাত থেকে পদ্ম পতাকা হাতে তুলে নিয়েছেন দিদির ‘প্রিয় কানন’। তারপর থেকে স্বাভাবিকভাবেই শোভন বিরোধী মন্তব্য ধেয়ে আসছে ঘাসফুল শিবির থেকে৷ শোভন পদ্ম-পতাকা হাতে নেওয়ার পরই তাঁর স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়ও বলেছেন , ওর রাজনৈতিক উত্থানের সবটা দেখেছি। শুরু থেকে দেখেছি। আজ পতনের সূচনাটা দেখলাম। যেদিন মাটিতে পরবে সেদিনটাও দেখার অপেক্ষায় রইলাম।