স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: আমফানে বাংলার বিধ্বংসী রূপ দেখে প্রাথমিক ভাবে এক হাজার কোটি টাকা অগ্রিম সাহায্য দেওয়ার ঘোষণা করেলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কেন্দ্রের সেই টাকা সরাসরি দুর্গতদের হাতে তুলে দেওয়ার আর্জি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ পশ্চিমবঙ্গের বিধ্বস্ত জেলাগুলি পরিদর্শন করতে শুক্রবার রাজ্যে আসেন প্রধানমন্ত্রী।

হেলিকপ্টারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়কে নিয়ে দুই ২৪ পরগনার বিপর্যস্ত এলাকা ঘুরে দেখেন তিনি। পরে বসির‌হাট কলেজে বৈঠক করেন। সেখানেই প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, শীঘ্রই কেন্দ্রীয় টিম এসে রাজ্যের পরিস্থিতি দেখে ক্ষয়ক্ষতির হিসেব করবে। এর পরে কেন্দ্র অর্থের ব্যবস্থা করবে। আপাতত কেন্দ্র এক হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে রাজ্যকে।

নরেন্দ্র মোদী বাংলায় পা রাখতেই বিজেপির রাজ্য সভাপতি তাঁর কাছে একটি চিঠি পাঠান। বাবুল সুপ্রিয় এবং দেবশ্রী চৌধুরী, এই দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর হাত দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে পাঠানো চিঠিতে দিলীপ ঘোষ লিখেছেন, রাজ্যের হাতে টাকা না দিয়ে সরাসরি ক্ষতিগ্রস্তদের হাতে টাকা দেওয়া হোক। তা না হলে আর্থিক দুর্নীতি হবে।

পরে সংবাদমাধ্যমকে দিলীপ ঘোষ বলেন, “পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির তরফ থেকে আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ত্রাণের টাকা ক্ষতিগ্রস্থদের কাছে সোজাসুজি টাকা দেওয়ার কথা বলেছি। কারণ আয়লা , বুলবুল , দু বছর আগের মালদহ – দিনাজপুরের বন্যার ক্ষতিপূরণ বন্টনে রাজ্য সরকার ব্যাপক দুর্নীতি করেছে।”

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবারই দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন,”আয়লার সময় উনি কেন্দ্রীয় সাহায্যের বিরোধিতা করেছিলেন। বলেছিলেন, সিপিএম টাকা মেরে দেবে। আর এখন নিজে ক্ষমতায় এসে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে টাকা চাইছেন। তৃণমূল তো আরও বেশি তৃণমূল টাকা মারবে। আসলে এটাই ওঁর স্বভাব। নাটক করে গোটা জীবনটাই কাটিয়ে দিলেন।”