স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: তৃণমূল সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদারের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ। কাকলি ঘোষ দোস্তিদার তাঁর মন্তব্য বিকৃত করে টুইট করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন দিলীপ ঘোষ।

তৃণমূল সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদারের ওই টুইটে বিজেপি রাজ্য সভাপতির মন্তব্য উদ্ধৃত করে লেখা ছিল, “নাগরিকত্ব নিয়ে মতুয়ারা যদি বেশি কথা বলে তবে মতুয়াদের ভোট আমাদের চাই না। মতুয়ারা নাগরিকত্ব নিয়ে বিজেপিকে ব্ল্যাকমেল করছে, মতুয়া ভোট আমাদের চাই না।” দিলীপ ঘোষের দাবি, তিনি এধরনের কোনও কথাই বলেননি।

শনিবার সাংবাদিক বৈঠকে দিলীপ ঘোষ বলেন, “সাইবার ক্রাইম করেছেন কাকলি ঘোষ দস্তিদার। আমার নামে ভুল টুইট করেছেন। আমি জানিনা উনি নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট চালান কিনা। যদি না চালান তবে এটা কী আইপ্যাকের লোক চালিয়েছে? একজন সাংসদের সম্পর্কে মিথ্যে কথা প্রচার করেছেন। আমার আইনজীবীকে বলেছি উপযুক্ত আইনি ব্যবস্থা নিতে। বাংলার রাজনীতির এতটা অধঃপতন না হওয়াই উচিত।”

যদিও কাকলি ঘোষ দস্তিদারের তরফে এখনও এ প্রসঙ্গে পালটা কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

এদিন বিরসা মুন্ডার মূর্তি বিতর্কে মুখ খোলেন দিলীপ ঘোষ। সংবাদমাধ্যমের সামনে পালটা তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিরসা মুন্ডাকে অপমান করার অভিযোগ তোলেন তিনি। সঙ্গে তাঁর দাবি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যখন ঘোষণা করেছেন, ওটা যার মূর্তিই হয়ে থাক, আজ থেকে ওটা বিরসা মুন্ডার মূর্তি।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার বাঁকুড়া সফরের শুরুতে বাঁকুড়া শহরের বাইরে পুয়াবাগান মোড়ে বিরসা মুন্ডার মূর্তিতে পুষ্পার্ঘ দান করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। শুক্রবার তৃণমূল-সহ বেশ কয়েকটি আদিবাসী সংগঠনের তরফে দাবি করা হয় মূর্তিটি বিরসা মুন্ডার নয়। তৃণমূলের তরফে আক্রমণ শানিয়ে মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘বাংলার সংস্কৃতি আদিবাসী সংস্কৃতি জানেন না শাহরা। তাই চমক দিতে গিয়ে ভুল করে ফেলেছেন তাঁরা।’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.